এ সাক্ষাতে রাশিয়ার পক্ষের নেতৃত্ব করবেন উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী গেন্নাদি গাতিলোভ ও মিখাইল বগদানোভ. মার্কিনী প্রতিনিধিদলে থাকবেন রাজনৈতিক প্রশ্নে উপ-পররাষ্ট্র সচিব ভেন্ডি শেরমান এবং দামাস্কাসে মার্কিনী রাষ্ট্রদূত রবার্ট ফোর্ড. ফোর্ডকে গত বছরের ফেব্রুয়ারী মাসে সিরিয়া থেকে ফিরিয়ে আনা হয়েছিল এবং সে সময় থেকে তিনি কাজ করছেন ওয়াশিংটনে. রাষ্ট্রসঙ্ঘের তরফ থেকে অংশগ্রহণ করবেন সিরিয়া সম্পর্কে রাষ্ট্রসঙ্ঘের বিশেষ প্রতিনিধি লাখদার ব্রাহিমি. এ সাক্ষাতে “জেনেভা-২” সম্মেলন আয়োজনের সাথে সম্পর্কিত প্রশ্নাবলি আলোচিত হবে, প্রাথমিকভাবে যা নির্ধারিত হয়েছে ২৩শে নভেম্বর. আরও আশা করা হচ্ছে যে, ব্রাহিমি মস্কো ও ওয়াশিংটনের কূটনীতিজ্ঞদের নিজের নিকট প্রাচ্য সফর সম্বন্ধে বর্ণনা করবেন. তাছাড়া জেনেভায় রাশিয়ার কূটনীতিজ্ঞরা সিরিয়ার বিরোধীপক্ষের প্রতিনিধিদের সাথে সাক্ষাত্ করতে চান. “জেনেভা-২” সম্মেলনের আয়োজন ক্রমেই বেশি কাঠিন্যের সম্মুখীন হচ্ছে. আগের মতোই, সম্মেলনে ইরানের অংশগ্রহণের প্রশ্ন মীমাংসা করা সম্ভব হচ্ছে না, যার উপর জোর দিচ্ছে রাশিয়া, কিন্তু তার বিরুদ্ধে মত প্রকাশ করছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং অন্য কয়েকটি দেশ. তাছাড়া, সম্প্রতিকালে ক্রমেই বেশি সংখ্যক বিরোধী দল “জেনেভা-২” সম্মেলনে অংশগ্রহণ করতে অস্বীকার করছে. বর্তমানে সম্মেলনে অংশগ্রহণ না করার কথা জানিয়েছে সিরিয়ার বিপ্লবী ও বিরোধী শক্তির জাতীয় কোয়ালিশনের বড় অংশ সিরিয়ার জাতীয় পরিষদ. সিরিয়ার জাতীয় পরিষদের বিবৃতি উপলক্ষে মস্কোয় দোষ দেওয়া হয়েছে পাশ্চাত্যের উপর বিরোধীপক্ষকে আলাপ-আলোচনার টেবিলে বসতে বোঝানোয় অক্ষমতার জন্য.ব্রাহিমি বলেছেন যে, “জেনেভা-২” অনুষ্ঠিত হবে না, যদি তাতে বিরোধীপক্ষ অংশগ্রহণ না করে.