গত সপ্তাহের শেষে ইউরোপের সংবাদ মাধ্যমে মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা সংস্থার তরফ থেকে ইউরোপীয় দেশ গুলির মধ্যে নেতৃস্থানীয় রাষ্ট্রগুলোর নেতৃত্বের টেলিফোনে ও নাগরিকদের ই-মেইল ইত্যাদির উপরে ব্যাপক হারে নজরদারি করা নিয়ে খবর দেওয়া হয়েছিল, সূত্র হিসাবে সাংবাদিকরা কিছু গোপন দলিলের উল্লেখ করেছিল, যা নাকি স্নোডেনের কাছ থেকে পাওয়া হয়েছে. হোয়াইট হাউসের এক উচ্চপদস্থ কর্মী ঘোষণা করেছিলেন যে, “মস্কো শহরে বসে মিস্টার স্নোডেনের কাজকর্ম নিশ্চয় করেই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের স্বার্থের উপরে আঘাত করেছে”. দিমিত্রি পেসকভ বলেছেন যে, এই তথ্যগুলো জার্মানীর সংবাদ মাধ্যমে প্রচারিত হয়েছে রাশিয়া থেকে পাওয়ার পরে নয়.

স্নোডেন নিজেও আগে একাধিকবার বলেছে যে, হংকংয়ে থাকার সময়েই সে পশ্চিমের সাংবাদিকদের হাতে সমস্ত তথ্য তুলে দিয়েছিল আর বর্তমানে তা নিজে নিয়ন্ত্রণের কোন উপায়ই তার নেই.