তাছাড়া, তাঁর আত্মীয়দেরও অপহরণ করা হয়েছে. পুলিশের তথ্য অনুযায়ী, জঙ্গীরা আশ-শ্মেইতিখ গ্রামে ঢুকে পড়ে, সামনে আসা বাসিন্দাদের, সেই সঙ্গে শিশু ও নারীদের হস্টেজ হিসেবে আটক করে এবং শেখ আল-ফৈয়েদের কাছে দাবি করে আটক লোকেদের জীবনের বদলে আত্মসমর্পণ করার. উপজাতির প্রধানের সাথে জঙ্গীরা হস্টেজ হিসেবে আটক করে তার চার ভাইকে, কাকাকে এবং পরিবারের ১১ জন সদস্যকে এবং পালিয়ে যায় স্থানীয় বাসিন্দাদের কাছ থেকে চুরি করা মোটরগাড়িতে. সন্ত্রাসবাদীরা পুড়িয়ে দেয় ৪০টি বসত-বাড়ি, যার মধ্যে শেখ আল-ফৈয়েদের বাড়িও ছিল. অপহরণকারীরা এখনও কোনো দাবি পেশ করে নি. তাদের অবস্থান স্থল সম্পর্কে এখনও কিছু জানা যায় নি.