এ সম্বন্ধে জানিয়েছে “বি.বি.সি”. ট্রাইব্যুনালের প্রতিনিধি লার্স ওলসেনের কথায়, এটি – রায় দেওয়ার আগে মামলার শেষ বৈঠক, এবং আশা করা হচ্ছে যে, রায় ঘোষণা করা হবে আগামী বছরে. ৮৭ বছর বয়সী নুয়ান চিয়া এবং ৮২ বছর বয়সী থিউ সাম্ফানের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছে ১৯৭৫-১৯৭৯ সালে কম্বোজে শান্তিপূর্ণ লোকেদের ব্যাপক হত্যায় অংশগ্রহণের. ঐ সময়ে লাল খমেরদের হাতে নিহত হয়েছে প্রায় ২০ লক্ষ লোক. আগে নুয়ান চিয়া ও থিউ সাম্পান বলেছিল যে, হত্যাকাণ্ডের প্রকৃত পরিসর তারা জানত না. তাদের কথায়, তাদের ধারণা ছিল যে, তারা এ কাজ করছে গোটা দেশের কল্যাণের নামে. একটি মামলায় এই দুজনের সাথে আগে ছিল আরও দুজন. প্রাক্তন সামাজিক সুনিশ্চিতি মন্ত্রী ৮০ বছর বয়সী ইয়েঙ্গ তিরিত-কে ট্রাইব্যুনাল মুক্ত করেছিল শারীরিক অবস্থার জন্য. তার স্বামী, “লাল খমেরদের” অন্যতম নেতা, পররাষ্ট্রমন্ত্রীর পদাধিকারী ইয়েঙ্গ সারি মামলা চলার সময় ৮৭ বছর বয়সে মারা যায়. “লাল খমেরদের” নেতা পল পোত মারা যায় ১৯৯৮ সালে.