এ সম্বন্ধে তিনি বলেছেন মঙ্গলবার এশীয়-প্রশান্ত মহাসাগরীয় শীর্ষ সাক্ষাতের ফলাফল সংক্রান্ত সাংবাদিক সম্মেলনে. তিনি মনে করিয়ে দেন যে, সহযোগিতা চলছে কার্বন-যৌগ, বিদ্যুত্শক্তি, পারমাণবিক বিদ্যুত্শক্তি, বিমান নির্মাণ, ধাতু উত্পাদন, পরিবহণ এবং পরিকাঠামোর ক্ষেত্রে. পুতিন, বিশেষ করে, উল্লেখ করেন যে, চীন আগ্রহ প্রকাশ করছে ভারী হেলিকপ্টারের প্রতি, আর এ ক্ষেত্রে রাশিয়া পৃথিবীতে অগ্রণী একটি স্থানে রয়েছে. তিনি আরও উল্লেখ করেন চওড়া ফিউজলেজের বিমান নির্মাণের ক্ষেত্রে রাশিয়া ও চীনের সহযোগিতার কথা. পুতিন জোর দিয়ে বলেন যে, রাশিয়া ও চীনের মাঝে পণ্য-আবর্তন ক্রমাগত বাড়ছে এবং ২০১৩ সালে পৌঁছোবে ৫৭০০ কোটি ডলারে.