আক্রমণের অংশগ্রহণকারীরা পশ্চাদপসরণ করে অকুস্থলে সরকারী নিরাপত্তা বাহিনী পৌঁছাতেই. নিরাপত্তা বাহিনী এ সম্ভাবনা বাদ দেয় না যে, এ আক্রমণ এর প্রাক্কালে অনুমিত রুশী মহিলার অংশগ্রহণ সহ ঘটনার সাথে জড়িত. স্থানীয় প্রচার মাধ্যমের নিশ্চয়োক্তি অনুযায়ী, ঐ মহিলা ত্রিপোলি-তে লিবিয়ার বিমানবাহিনীর অফিসার মুহাম্মেদ আস-সুসি-কে গুলি করে এবং তার বৃদ্ধা মা-কে কয়েকবার ছুরির আঘাত হানে. দেশের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, ১০ জন সশস্ত্র ব্যক্তি দুটি মোটরগাড়িতে দূতাবাসের ভবনের কাছে আসে. প্রথমে তারা গুলিবর্ষণ করে পাশে পার্ক করে রাখা দূতাবাসের মোটরগাড়ির উপর, আর তারপর ভবনের উপর. ভাগ্যক্রমে, কোনো কূটনীতিজ্ঞ ক্ষতিগ্রস্ত হন নি.