এ সম্বন্ধে বলেছেন ক্রেমলিনের প্রশাসনের প্রধান সের্গেই ইভানোভ, যে ইন্টারভিউ রাশিয়ার একসারি পত্রিকা ও বৈদ্যুতিন প্রচার মাধ্যম মঙ্গলবার প্রকাশ করেছে. তাঁর কথায়, “পাশ্চাত্য এ উপলব্ধিতে আসছে যে, সম্ভবত বিরোধীপক্ষকে বিভাজন করা দরকার. “আল-কাইদা” এবং অন্যান্য চরমপন্থীদের “জেনেভা-২” সম্পর্কে বলার জন্য বোঝানোর চেষ্টা বন্ধ করা দরকার. আর সেই সঙ্গে তাদের অস্ত্রে সজ্জিত না করা আকাঙ্ক্ষিত”. তিনি বলেন যে, “পাশ্চাত্য যদি তথাকথিত সিরিয়ার গণ বাহিনীকে অস্ত্রে সজ্জিত করে, যারা আসদের বিরুদ্ধে লড়াই করা সিরিয়াবাসীদের নিয়ে গঠিত, তাহলে এ কথা ভাবার কোনো ভিত্তি নেই যে, “আল-কাইদা” তাদের কাছ থেকে এ অস্ত্র কেড়ে নেবে না”. ইভানোভের কথায়, ““আল-কাইদা” সিরিয়ার আভ্যন্তরীন বিরোধীপক্ষের চেয়ে শক্তিশালী”. ইভানোভ উল্লেখ করেন যে, “সিরিয়ায় বিরোধীপক্ষকে গোড়ায় দু ভাগে ভাগ করা উচিত এবং “জেনেভা-২” সম্মেলনে আমন্ত্রণ করা উচিত্ আসদের প্রতিনিধিদের এবং সাধারণভাবে বললে যুক্তি সম্পন্ন বিরোধীপক্ষকে এবং সংলাপ শুরু করা দরকার”. সেই সঙ্গে তিনি উল্লেখ করেন যে, সিরিয়ায় “বহুকাল ধরে সরকার ও বিরোধীপক্ষের লড়াই চলছে না”. ইভানোভের মতে “বিরোধীপক্ষ অন্ততপক্ষে পাঁচটি পরস্পরের উপর নির্ভরশীল নয়, এবং প্রায়ই পরস্পরকে ঘৃণা করা শাখা নিয়ে গঠিত”, এবং তাদের “সকলে সকলের সাথে লড়াই করছে”.