বাতাসের গতি ছিল ঘন্টায় ১০৫.৫ কিলোমিটার. এ বিপর্যয়ে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে চণ্ডীগড়, মোহালি ও পাঁচকুলা শহর. এই ঝড়ে বহুসংখ্যক গাছ ভেঙ্গে পড়েছে, যার ফলে রাস্তায় বহু কিলোমিটারের গাড়ির ভীড় দেখা দিয়েছে এবং ঝড়ের দরুণ জল-সরবরাহে বিঘ্ন ঘটেছে. কয়েকটি পাড়া এবং একসারি হাসপাতালও বিদ্যুত্ সরবরাহ থেকে বঞ্চিত ছিল. আবহবিদরা নতুন নতুন ঝড়ের সম্ভাবনা সম্বন্ধে সতর্ক করে দিচ্ছে.