তারা দক্ষিণ কোরিয়ার কর্মীদের অধিকার রক্ষা সংক্রান্ত চুক্তি আলোচনা করছে. নতুন নিয়ম, বিশেষ করে, উত্তর কোরিয়ার কর্তৃপক্ষের তরফ থেকে জেরার সময় দক্ষিণ কোরিয়ার সরকারী ব্যক্তিদের উপস্থিতি সুনিশ্চিত করার সুযোগ দেয়, জানিয়েছে “ইতার-তাস” সংবাদ এজেন্সি. সেওল বিশেষ মনোযোগ দিচ্ছে উত্তর কোরিয়ার কর্তৃপক্ষের দেবারা দক্ষিণ কোরিয়ার নাগরিকদের গ্রেপ্তারের ক্ষেত্রে তাদের উপযুক্ত বিধানিক সমর্থন সুনিশ্চিত করার প্রতি. যে চুক্তি প্রস্তুত করা হচ্ছে, তার উদ্দেশ্য হল দুই পক্ষের মাঝে আস্থা সুদৃঢ় করার জন্য ভিত্তি স্থাপন করা, উল্লেখ করেছে দক্ষিণ কোরিয়ার প্রতিনিধিদল. আলাপ-আলোচনার অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ের মধ্যে আছে – শিল্প-সমাহারের ভূভাগে যোগাযোগ ব্যবস্থার কাজ উন্নত করা. কেসোনে শিল্প-সমাহারের কাজ বন্ধ হয়েছিল এপ্রিল মাসে উত্তর কোরিয়ার সিদ্ধান্তে, দক্ষিণ কোরিয়ার সাথে সম্পর্ক আবার তীব্র হয়ে ওঠার জোয়ারে. পরবর্তীকালে পিয়ংইয়ং ও সেওল শিল্প-সমাহারের কাজ পুনরারম্ভ করার ব্যাপারে সমঝোতায় আসে.