সিরিয়ার পরিস্থিতি কানাগলিতে গিয়ে পড়েছে. সিরিয়ায় মানব অধিকারের সম্ভাব্য লঙ্ঘন তদন্ত সংক্রান্ত রাষ্ট্রসঙ্ঘের কমিশনের দ্বারা বুধবার প্রকাশিত রিপোর্টে এ সিদ্ধান্ত রয়েছে. একই সঙ্গে, ২০১১ সালের আগস্টে গঠিত কমিশনের সদস্যরা জোর দিয়ে বলছেন যে, “সঙ্ঘর্ষের সামরিক মীমাংসা সম্ভব নয়”. জেনেভা ঘোষণাপত্রের মূলনীতির ভিত্তিতে রাজনৈতিক মীমাংসা হল মীমাংসার একমাত্র পথ, উল্লেখ করা হয়েছে রিপোর্টে. কমিশনের সদস্যদের মতে, যারা এ দেশে অস্ত্র সরবরাহ করছে তারা শুধু বিজয় অর্জনের মোহই জাগাচ্ছে. রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়েছে যে, সিরিয়ার বিরোধীপক্ষের জঙ্গীরা, যাদের পক্ষে লড়াই করছে বিদেশী ভাড়াটে যোদ্ধারা, সামরিক অপরাধ করছে, সেই সঙ্গে ঠাণ্ডা মাথায় হত্যা করছে, নির্যাতন করছে এবং হস্টেজ হিসেবে লোকেদের অপহরণ করছে. এ দলিলে আরও উল্লেখ করা হচ্ছে যে, সশস্ত্র বিরোধী দলগুলি সৈনিকদের ছেলে-মেয়েদের চুরি করছে. সম্প্রতিকালে সিরিয়ায় সশস্ত্র বিরোধীপক্ষ রাডিক্যাল চরিত্র ধারণ করছে. একই সঙ্গে রিপোর্টের রচয়িতারা সরকারী বাহিনীর উপর হিংসার দায়িত্ব অর্পণ করছে. তাঁদের মতে, সিরিয়ায় পরিস্থিতি কানাগলিতে গিয়ে পড়েছে, কারণ সঙ্ঘর্ষের প্রত্যেক পক্ষ সামরিক বিজয়ের সম্ভাবনায় বিশ্বস্ত.