কেউ যদি মনে করেন যে, জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের উন্নতি এবং আন্তর্জাতিক আইনকে সম্মান দেখানোর চেয়ে দেশে গৃহযুদ্ধ শুরু হওয়াই শ্রেয় তাহলে এ ধরণের যুক্তির সাথে আমরা কখনই একমত হতে পারবো না।

জাতিসংঘের গঠনতন্ত্র রক্ষায়, নিরাপত্তা পরিষদের ভূমিকা ও আন্তর্জাতিক অধিকার প্রতিষ্ঠায় প্রয়োজনবোধে যা করা দরকার সবকিছু করার অঙ্গীকারের কথা বলেন রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী।