এর আগে এই সপ্তাহে দুই দেশের প্রতিনিধিরা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে ফিলিপাইনসে মার্কিন সামরিক উপস্থিতি বৃদ্ধি করা নিয়ে আলোচনা করেছে. এই সব আলোচনার শেষে করা ঘোষণাতে বলা হয়েছে যে, দুই পক্ষই দক্ষিণ পূর্ব এশিয়াতে নিরাপত্তা মজবুত করতে চায়. দুই দেশই এই এলাকায় যারা বাণিজ্য করতে চায় তাদের জন্য অবাধ সমুদ্র পথ ও যারা বাধা দিতে যাবে, তাদের আটকানোর জন্য সম্মিলিত ভাবে চেষ্টা করবে বলে ইচ্ছা প্রকাশ করেছে. দুই দেশই এই এলাকায় সীমান্ত সংক্রান্ত প্রশ্ন আন্তর্জাতিক আইন মেনে শান্তিপূর্ণ উপায়ে সমাধান করার কথা বলেছে, কিন্তু একই সঙ্গে যুদ্ধ জাহাজ ও গোলা বারুদ বেশী করেই জমা করতে শুরু করেছে.

এই দলিলে চিনের কথা উল্লেখ করা হয় নি. আগে ম্যানিলা বেজিংকে এই ব্যাপারে দোষ দিয়েছে যে, চিন দক্ষিণ চিন সাগরে অনেক জায়গার অধিকার নিয়ে বিরোধ সৃষ্টি করেছে আর ফিলিপাইনসের সমুদ্র তীরের কাছের এলাকাতেও কিছু জায়গা নিজেদের বলে দাবী করেছে ও এই ভাবে এই এলাকার স্থিতিশীলতাকে ও শান্তিকে হুমকি দিয়েছে.