সোভিয়েত ও মার্কিনী ফৌজের সহায়তাক্রমে কোরিয় উপদ্বীপকে জাপানী আগ্রাসকদের কবল থেকে মুক্ত করার জয়ন্তী উপলক্ষ্যে জাতির উদ্দেশ্যে প্রদত্ত ভাষনে পাক কীন হে এই প্রস্তাব দিয়েছেন. তিনি সেইসঙ্গেই দুই দেশকে বিচ্ছিন্নকারী অসামরিক এলাকায় শান্তির উদ্যান প্রতিষ্ঠা করারও প্রস্তাব দিয়েছেন. ক্যাসনে শিল্পতালুকের স্বাভাবিক কাজকর্ম আবার চালু করার ব্যাপারে উত্তর ও দক্ষিণ কোরিয়ার মধ্যে বোঝাপড়া হওয়ার পরেই দক্ষিণ উপরোক্ত সব উদ্যোগ উত্থাপণ করেছে.

উত্সব উপলক্ষ্যে দেওয়া ভাষণে পাক কীন হে জাপানের কাছেও অতীতে কৃত অপরাধ থেকে শিক্ষা গ্রহণ করার আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, যে তাদের সামরিক অপরাধের শিকার মানুষজনের পাশে দাঁড়ানো জাপানিদের নৈতিক কর্তব্য.