খবর অনুযায়ী, আল-বরাদেই ইস্তফা দিয়েছেন, যেহেতু তিনি নিজের উপরে দেশের অন্তর্বর্তী কালীণ নেতৃত্বের দায়ভার নিতে পারেন নি. এই প্রসঙ্গে তিনি উল্লেখ করেছেন যে, প্রশাসনের একটা সহমতে আসার জন্য শান্তিপূর্ণ বিকল্প ছিল.

জানানো হয়েছিল যে, ইজিপ্টে পরিস্থিতি ঠিক তার পরেই আবার উত্তাল হয়েছে, যখন পুলিশ কায়রোতে মিছিলের উপরে লণ্ডভণ্ড করার জন্য লাঠি চালিয়েছিল, যারা পদচ্যুত রাষ্ট্রপতি মুর্সির সমর্থনে মিছিল করেছিল. ঐস্লামিকেরা জোর দিয়ে বলছে যে, দেশের পুলিশ ও সামরিক বাহিনী তাদের উপরে গুলি চালনা করেছে. দেশের শৃঙ্খলা রক্ষীরা আবার এই বিষয়ে সেই “মুসলমান ভাইদেরই” দোষ দিয়েছে. মুর্সি সমর্থকদের কথামতো, এই ধরনের লড়াইয়ের কারণে প্রায় দু’হাজার মানুষ নিহত হয়েছে. ইজিপ্টের স্বাস্থ্য পরিষেবা মন্ত্রণালয় থেকে পাওয়া খবর অনুযায়ী বর্তমানে সারা দেশে নিহতের সংখ্যা ১৪৯ জন ও ১৪০০ বেশী আহত হয়েছেন.