তিনি বলেন, বিশেষজ্ঞরা বর্তমানে হেগে অবস্থান করছেন এবং লজিস্টিক সংক্রান্ত সমস্যার সমাধান নিয়ে কাজ করছেন।

উল্লখ্য, গত ১৯ মার্চ সিরিয়ার খান আল-আসালে রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহার করা হয়েছে কিনা তা তদন্তের জন্য জাতিসংঘের একটি পর্যবেক্ষক দলকে আমন্ত্রণ জানিয়েছে সিরিয়ার সরকার। তবে সিরিয়ার বিরোধী পক্ষের দাবীর মুখে দেশটির আরো দুটি স্থানে পরীক্ষা চালানোর সিদ্ধান্ত নেয় বিশেষজ্ঞরা। তাছাড়া খান আল-আসালে রুশ বিশেষজ্ঞদের দ্বারা পরিচালিত পর্যবেক্ষণের একটি দলিল গত ৯ জুলাই জাতিসংঘের কাছে হস্তান্তর করে রাশিায়া। ওই পর্যবেক্ষণে সিরিয়ার বিরোধী দলের জারিন গ্যাস ব্যবহারের প্রমাণ মেলেছে। পরো সিরিয়াজুড়ে ১৩টি স্থানে রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহারের তথ্য জাতিসংঘের কাছে পৌঁছেছে।