সংবাদে বলা হয়, স্নোডেন যদি রাশিয়ার অন্য অঞ্চলে স্থায়ীভাবে বসবাস করতে চায় তাকে সেই ব্যবস্থা করে দেওয়া হবে।

 প্রসঙ্গত, যুক্তরাষ্ট্রের গোপন নজরদারির তথ্য ফাঁসকারী স্নোডেন চলতি বছরের মে মাসে পালিয়ে হংকং আশ্রয় নেয়। গত ২৩ জুন থেকে ১ আগষ্ট পর্যন্ত তিনি মস্কোর শেরমেয়তোভা বিমানবন্দরের ট্রানজিট জোনে অবস্থান করেন। গত ১ আগস্ট রাশিয়া সরকার তাকে এক বছরের জন্য সাময়িক আশ্রয় দেয়। স্নোডেনের আইনজীবি আনাতোলি কুরচেনের গত ৬ আগষ্ট জানায়, স্নোডেন রাশিয়ার ভূখন্ডে নিজের নিবন্ধন করেছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে স্নোডেনকে ওয়াশিংটনের কাছে ফেরত দিতে চাপ প্রয়োগ করা হচ্ছে।