তাদের তথ্য অনুযায়ী, এই বিস্ফোরক তিনটে গ্রেনেড জোড়া লাগিয়ে বানানো হয়েছিল. হাসপাতালের কাছে এক স্থানীয় বাসিন্দা একটা সন্দেহজনক প্যাকেট দেখতে পেয়ে পুলিশে খবর দিয়েছিল. এক অজ্ঞাত পরিচয় সন্দেহভাজন ব্যক্তি এই প্যাকেট হাসপাতালের পাঁচিলের কাছে রেখে গাড়ীতে করে চটপট পালিয়ে গিয়েছিল. বিষয় নিয়ে তদন্ত করে দেখা হচ্ছে.