বুধবার রাতে ইসলামাবাদ বিমানবন্দরে পৌঁছান তিনি।

জানা গেছে, বৃহস্পতিবার সদ্য বিদায়ী প্রেসিডেন্ট আসিফ আলী জারদারি, প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ এবং সেনাপ্রধান জেনারেল আশফাক কায়ানির সঙ্গে বৈঠক করবেন কেরি।

জেই কার্নি বলেন, পাক-মার্কিন দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক জোরদার, পাকিস্তানের অর্থনীতি উন্নয়ন, নিরাপত্তা নিশ্চত ও আঞ্চলিক ইস্যুগুলো নিয়ে ইসলামাবাদ-ওয়াশিংটনের মধ্যে আলোচনা হবে। আশাকরা হচ্ছে, আফগানিস্তান থেকে সৈন্য প্রত্যাহার নিয়ে পাকিস্তানের সহায়তার বিষয় নিয়ে আলোচনা হতে পারে। মূলত পাকিস্তানের ভূখন্ড দিয়েই আফগানিস্তানের জন্য মার্কিন যোদ্ধাদের সামরিক রসদ সরবরাহ করা হয়ে থাকে।

উল্লেখ্য, মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে জন কেরির এটিই প্রথম পাকিস্তান সফর।