শুক্রবারে সে বলেছে যে, এই সব গোপন খবর ফাঁস করে দেওয়ার আয়োজন করে, সে কোন ভাবেই অনুতপ্ত নয়. “যা আপনাদের সকলকেই স্পর্শ করে সেই গুপ্তচর বিভাগের পক্ষ থেকে আড়ি পেতে দেখাশোনা নিয়ে তথ্য প্রকাশ্যে ফাঁস করে দেওয়ার বিবেক সম্মত সিদ্ধান্ত আমার জন্য খুবই দামী হয়েছে, কিন্তু এই সিদ্ধান্ত ছিল সঠিক আর আমি কোন কিছু নিয়েই অনুতপ্ত নই”, - বলা হয়েছে স্নোডেনের ঘোষণায়, যা শুক্রবারে উইকিলিক্স সাইটে প্রকাশ করা হয়েছে. তার কথামতো, “আমি শুধু ন্যায় খুঁজেছি”.

প্রাক্তন কর্মী স্নোডেন শুক্রবারে শেরেমেতিয়েভো বিমান বন্দরের ট্রানজিট এলাকায় রাশিয়াতে কর্মরত মানবাধিকার সংস্থা গুলির, রাষ্ট্রসঙ্ঘের ও রাশিয়ার বিখ্যাত ব্যক্তিত্বদের সঙ্গে দেখা করেছে. তার দেখা হওয়ার পরে জানা গিয়েছে যে, সে রাশিয়াতে রাজনৈতিক আশ্রয় নিতে চায়. স্নোডেন আজ তৃতীয় সপ্তাহ এই বিমানবন্দরের ট্রানজিট এলাকায় রয়েছে, যা সে ছেড়ে যেতেও পারছে না, কারণ তার মার্কিন পাসপোর্ট বাতিল করা হয়েছে.