×
South Asian Languages:
অর্থনীতি নভেম্বর 2010
রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি দমিত্রি মেদভেদেভ ফেডারেল সভার কাছে বার্তা পেশ করে বলেন যে, ২০২০ সাল নাগাদ রাশিয়ার অর্থনীতিতে শক্তি-ফলপ্রসূতা ৪০ শতাংশ বাড়ানো উচিত. রাষ্ট্রপতির কথায়, তা, বিশেষ করে, নাগরিকদের সঙ্গতি বাঁচানোর সুযোগ দেবে. সর্বপ্রথমে কথা হচ্ছে বাস্তু সার্ভিসের খরচ যোগানোর ক্ষেত্রে. মেদভেদেভ তাছাড়া “বাস্তু ব্যবস্থার আরও অবনতি” থামানোর প্রয়োজনীয়তার কথা উল্লেখ করেন.
রাশিয়ার অর্থনীতিতে পরিস্থিতি জটিল রয়েছে, তবে রাষ্ট্রের সামাজিক বাধ্যবাধকতা অবশ্যই পুরণ করা হবে. ফেডারেল সভার কাছে বার্তায় এ সম্বন্ধে বলেছেন রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি দমিত্রি মেদভেদেভ. তিনি জানান যে, কর্তৃপক্ষ মুদ্রাস্ফীতির তীব্র বৃদ্ধি ঘটতে দেন নি, এবং ভবিষ্যতে তা ৪-৫ শতাংশের মানে ধরে রাখার পরিকল্পনা করছে.
বিগত ৪০ বছরে সবচেয়ে গরীব দেশগুলির সংখ্যা দুগুণ বেড়েছে. এ সম্বন্ধে বলা হয়েছে রাষ্ট্রসঙ্ঘের রিপোর্টে. রাষ্ট্রসঙ্ঘের তথ্য অনুযায়ী, পৃথিবীতে ৪৯টি দেশ আজ সবচেয়ে কম বিকশিত. ১৯৭১ সালে তাদের সংখ্যা ছিল মাত্র ২৫. রাষ্ট্রসঙ্ঘের মূল্যায়ন অনুযায়ী, এ সব দেশের অর্থনৈতিক বিকাশের মডেল বিফল হয়েছে এবং অবিলম্বে তার পুনর্বিবেচনা করা উচিত.
বিশ্বের ন্যানো টেকনলজির বাজারের উত্পাদন মূল্যায়ণ করা হয়ে থাকে প্রায় ২৫০ শত কোটি ডলার, আর ২০১৫ সালে তা এক গগন-চুম্বী সংখ্যা, প্রায় তিন লক্ষ কোটি ডলার ছুঁতে চলেছে. রাশিয়া এই বাজারে নিজেদের জায়গা করে নিতে চায়. বর্তমানে সরকারি কোম্পানী “রসন্যানোর” বাক্সে একশরও বেশী প্রকল্প রয়েছে.
রাশিয়া ও চীনের কোম্পানিগুলি ৮০০ কোটি ডলার মূল্যের ১৩টি চুক্তি স্বাক্ষর করেছে. এ চুক্তিগুলি আজ মস্কোয় কারবারী সম্মেলনে স্বাক্ষরিত হয়েছে, জানিয়েছেন উপ-প্রধানমন্ত্রী আলেক্সান্দর ঝুকোভ. তিনি জোর দিয়ে বলেন যে, চীন থেকে বিনিয়োগের মৌলিক বৃদ্ধিতে রাশিয়া আগ্রহী.
রাশিয়া বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থায় যোগ দিতে পারে ২০১১ সালের মাঝামাঝি. এ সম্বন্ধে বলেছেন বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থায় যোগদান সংক্রান্ত আলাপ-আলোচনায় রাশিয়ার প্রতিনিধিদলের নেতা মাক্সিম মেদভেদকোভ. তিনি উল্লেখ করেন, “বাস্তবিকপক্ষে, আমাদের কথাবার্তা চলছে বড় কমার্শিয়াল কনট্র্যাক্ট সম্বন্ধে. বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থায় যোগ দিয়ে আমরা বেশি অধিকার পাব. তবে, এর জন্য আমাদের মূল্য দিতে হবে. আমরা মনে করি না যে, অতিরিক্ত মূল্য দিচ্ছি.
বিশ্ব অর্থ তহবিল(আইএমএফ) বিশ্বের মজুদকৃত অর্থের কাঠামোগত থলি পূনঃপরীক্ষা করেছে.প্রতি ৫ বছর  অন্তর এই কাজটি করা হয়.সবাই ধারনা করেছিল যে,ঐ মুদ্রা তালিকায় চীনের ইউআন প্রবেশ করবে,বিশেষকরে বিগত পাঁচবছরে চীনের অর্থনৈতিক উন্নয়নে যতটা ধারনা করা হয়েছিল তার থেকেও ব্যাপক সাফল্য এসেছে.
রাশিয়া ও ভারতের মাঝে পণ্য-আবর্তন বিগত পাঁচ বছরে তিনগুণ বেড়েছে. এ সম্বন্ধে নয়া-দিল্লিতে সাংবাদিকদের বলেছেন রাশিয়ার উপ-প্রধানমন্ত্রী সের্গেই ইভানোভ, বাণিজ্যিক-অর্থনৈতিক, বৈজ্ঞানিক-প্রযুক্তিগত ও সাংস্কৃতিক সহযোগিতা সংক্রান্ত আন্তঃসরকারী কমিশনের বৈঠকের ফলাফলের প্রটোকল স্বাক্ষরের পরে. তাঁর কথায়, এ বছরে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যের পরিমাণ পৌঁছোতে পারে ১০০০ কোটি ডলারে.
আগামী পাঁচ বছরে ভারত ও রাশিয়ার মাঝে পারস্পরিক বাণিজ্যের পরিমাণ ২ হাজার কোটি ডলারে পৌঁছোতে পারে, বলেছেন ভারতে রাশিয়ার বাণিজ্যিক প্রতিনিধি মিখাইল রাপোতা. বুধবার তিনি বলেন, “আমাদের সামনে রয়েছে বিশাল কর্তব্য, সেই সঙ্গে দু দেশের মাঝে বাণিজ্যিক আবর্তন্ বাড়ানো.
পৃথিবীতে অর্থনৈতিক শক্তির ভারসাম্য তাড়াতাড়ি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে চীনের দিকে পরিবর্তিত হচ্ছে, মনে করেন মার্কিনী পুঁজিপতি জর্জ সোরস. তিনি বলেন, “এখন বিজিঙের উচিত অন্যান্য দেশের স্বার্থ বিবেচনা করে বিশ্ব ব্যবস্থার জন্য দায়িত্ব গ্রহণ করা”. সোরস তাছাড়া মার্কিনী প্রশাসনের অর্থনৈতিক নীতির সমালোচনা করেন.
জাপানের ইয়োকোহামায় এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের অর্থনৈতিক সহযোগিতা সংস্থার (এপেক)এর শীর্ষ সম্মেলন শেষ হয়েছে.সম্মেলনের চুড়ান্ত ঘোষণায় আগামী ২০১৫ সাল নাগাদ সম্মিলিত অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জনের কৌশল বিষয়ে বর্ননা করা হয়েছে.
বিশ্বের সেরা কুড়িটি অর্থনীতির শীর্ষ বৈঠক শেষে নেওয়া সম্মিলিত বিবৃতিকে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল স্বাগত জানিয়েছে, কিন্তু সাবধান করে দিয়েছে যে বিশ্ব অর্থনৈতিক সঙ্কটের পরিনামের সঙ্গে সংগ্রামে ঢিলে দেওয়ার সময় এখনও আসে নি. আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের ডিরেক্টর – কার্য নির্বাহী প্রধান ডোমিনিক স্ত্রস কান মনে করেন যে, সিওলে গৃহীত কাজ করার পরিকল্পনা ঠিক দিকেই নেওয়া পদক্ষেপ.
রাশিয়ার বিজ্ঞান একাডেমীর অর্থনৈতিক ইনস্টিটিউটের প্রধান রুসলান গ্রিনবার্গ মনে করেন যে, বিনিময় মুদ্রা দের মধ্যে যুদ্ধ বিষয়টি অতিরঞ্জিত. তাঁর কথামতো, এই বিষটি সিওলে কুড়িটি অর্থনৈতিক ভাবে উন্নত দেশের শীর্ষ বৈঠকের শেষে প্রকাশিত দলিল নাকচ করেছে.
আন্তর্জাতিক জ্বালানি এজেন্সি ২০১১ সালে তেলের বিশ্ব চাহিদার পূর্বাভাষ বাড়িয়েছে দিনে ৮ কোটি ৮৫ লক্ষ ব্যারেল পর্যন্ত, তার অর্থ, আগের পূর্বাভাষের তুলনায় ৩ লক্ষ ব্যারেল বেশি. এ সম্বন্ধে বলা হয়েছে আজ প্রকাশিত এজেন্সির রিপোর্টে, জানিয়েছে রিয়া নোভস্তি সংবাদ সংস্থা.
ভারত বিদেশে বিরল খনিজ পদার্থের অন্যতম বিকল্প সরবরাহকারী হয়ে উঠতে চায়, যাতে সাহায্য করবে এ কাঁচামালের বিশ্বব্যাপী রপ্তানিতে চীনের একচেটিয়া অধিকার বন্ধ হওয়ায়, আধুনিক শিল্পে এ কাঁচামালের খুবই প্রয়োজন আছে.
1 2 3 4 5 6 7 8 9 10 11 12 13 14 15 16 17 18 19 20 21 22 23 24 25 26 27 28 29 30
নভেম্বর 2010
ঘটনার সূচী
নভেম্বর 2010
1
3
4
5
6
7
10
11
15
16
20
22
27
28
29