×
South Asian Languages:
এশিয়া, ডিসেম্বর 2013

২০১৩ সালের শেষ বঙ্গোপসাগরে ভারতের একসারি সামরিক কাজকর্ম দিয়ে চিহ্নিত করা হয়েছে. “অগ্নি-৩” রকেটের উড়ান আর জাপান – ভারত সম্মিলিত সামুদ্রিক মহড়া – শুধু এই সবেরই কয়েকটা উদাহরণ হতে পারে. এটা কোন দ্ব্যর্থ না রেখেই বলা যেতে পারে যে, ভারত শুধু এখন সমুদ্র তীরে কোন রকমের আক্রমণ প্রতিহত করতেই সক্ষম নয়, বরং অনেক উচ্চাকাঙ্ক্ষাও পোষণ করেছে, যা তাদের সমুদ্র সীমা থেকে অনেক দূরের এলাকায় বর্তমানে তৈরী হয়েছে. বাস্তবে ভারতের সামরিক –সামুদ্রিক ক্ষমতা বৃদ্ধি করা বহু রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের সেই তত্ত্বকেই প্রমাণ করে দেয় যে, ভারত ও প্রশান্ত মহাসাগর ইতিমধ্যেই একটি সম্পূর্ণ মহাসাগরে পরিণত হতে চলেছে – যাকে বলা যেতে পারে ভারত- প্রশান্ত মহাসাগরীয় এলাকা.

এশিয়া প্রশান্ত মহাসাগরীয় এলাকায় পরিস্থিতি তীক্ষ্ণ হওয়ার কথাই মনে রয়ে যাবে চলে যাওয়ার বছরের সঙ্গে. উত্তর কোরিয়া থেকে রকেট উড়ান ও পারমাণবিক পরীক্ষা, বিতর্কিত দ্বীপপূঞ্জের এলাকায় শক্তি প্রদর্শন – জলসীমা পার করে ও আকাশ সীমা লঙ্ঘণ করেই পতাকা ও বিমানের “ডানা” দিয়ে করা হয়েছে – এই সবই বাধ্য করেছে এশিয়া প্রশান্ত মহাসাগরীয় এলাকাতে ফলপ্রসূ নিরাপত্তা ব্যবস্থা তৈরী করার জন্য.

ঠিক দুই বছর আগে বাগদাদে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক পতাকা নামিয়ে নেওয়া হয়েছিল. এটা ছিল একটা প্রতীকী ব্যাপার, যা করা হয়েছিল, স্রেফ দেখানোর জন্যই যে, ইরাক থেকে মার্কিন সেনাবাহিনী চলে যাচ্ছে. আগামী বছরে, সব দেখে শুনে মনে হয়েছে যে, আমেরিকার সেনাবাহিনীর মূল অংশ আফগানিস্তান থেকেও নিয়ে যাওয়া হতে চলেছে.

কিছু লোক মনে করেছেন যে, ওয়াশিংটন রাজনৈতিক দিক থেকেও মধ্য ও নিকট প্রাচ্য থেকে নিজেদের প্রভাব কম করছে – আর এটা বিগত সময়েই বেশী করে দেখতে পাওয়া যাচ্ছে.

মধ্য ও দক্ষিণ এশিয়াতে ঐক্যবদ্ধ বিদ্যুতশক্তি সরবরাহ ব্যবস্থায় আরও একজন বিনিয়োগকারী উদয় হয়েছে. মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ঘোষণা করেছে CASA-1000 প্রকল্পে এক কোটি পঞ্চাশ লক্ষ ডলার বিনিয়োগ করার বিষয়ে আগ্রহের কথা. রাশিয়া এই প্রকল্পের জন্য প্রায় ৫০ কোটি ডলার পর্যন্ত দিতে তৈরী আছে.

২০০৭ সালেই প্রথম CASA-1000 প্রকল্প নিয়ে বলা হয়েছিল. এই ধারণার মূল কথা হল যে, আফগানিস্তান ও পাকিস্তানকে উন্নয়নে সহায়তা করা. দুই দেশেই খুব বেশী করে বিদ্যুত শক্তির অভাব টের পাওয়া যায়. তাদের দিকে প্রাক্তন সোভিয়েত মধ্য এশিয়ার দেশগুলো থেকে কিছু বাড়তি বিদ্যুত সরবরাহ করার কথা হয়েছে, যে সমস্ত দেশে অনেক বেশী পরিমানে বিদ্যুত শক্তি উত্পাদনের সুযোগ রয়েছে.

২০১৩ সালে বিশ্বে রেকর্ড পরিমাণে দানাশষ্য উত্পাদিত হতে যাচ্ছে. রাষ্ট্রসঙ্ঘের খাদ্যদ্রব্য ও কৃষি সংস্থার অনুমান অনুযায়ী নতুন বছরের আগেই বিশ্বে আড়াইশো কোটি টন বিভিন্ন ধরনের দানাশষ্য তোলা সম্ভব হতে চলেছে. এটা গত বছরের চেয়ে শতকরা আট শতাংশ বেশী. তারই মধ্যে এই সংস্থা সাবধান করে দিচ্ছে যে, খাদ্য নিরাপত্তা নিয়ে পরিস্থিতি এশিয়া ও আফ্রিকার অনেক অংশেই খারাপ হতে চলেছে.

ইউক্রেনে ইউরোপীয় সঙ্ঘের সঙ্গে বাণিজ্য চুক্তিতে স্বাক্ষর না করার ফলে প্রবল বিরোধ বিক্ষোভের মধ্যেই সেই দেশের রাষ্ট্রপতি ভিক্টর ইয়ানুকোভিচ চিনের শেনসি প্রদেশের সিয়ান শহরে এক সরকারি সফর করতে চলে গিয়েছেন বলে খবর দিয়েছে ইউক্রেনের রাষ্ট্রপতির প্রশাসনের দপ্তর থেকে.

1 2 3 4 5 6 7 8 9 10 11 12 13 14 15 16 17 18 19 20 21 22 23 24 25 26 27 28 29 30 31
ডিসেম্বর 2013
ঘটনার সূচী
ডিসেম্বর 2013
1
2
3
5
6
7
8
9
11
12
13
15
17
18
19
21
22
23
24
26
27
28
29
30
31