উত্তর অতলান্তিক চুক্তি সংস্থা, অথবা উত্তর অতলান্তিক জোট. বিশ্বের সর্ববৃহত্ সামরিক ও রাজনৈতিক জোট, যেখানে ইউরোপের বেশীর ভাগ দেশ, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডা রয়েছে. এই জোটের ঘোষিত একটি অন্যতম লক্ষ্য হল, সংস্থার সদস্য যে কোন দেশের ভৌগলিক সীমার প্রতিরক্ষা করা. ন্যাটো জোটের সবচেয়ে বড় রাজনৈতিক অঙ্গ হল উত্তর অতলান্তিক উপদেষ্টা পরিষদ (ন্যাটো পরিষদ), যা সমস্ত সদস্য দেশের প্রতিনিধি দলের সমন্বয়ে তৈরী ও অধিবেশন জেনেরাল সেক্রেটারির সভাপতিত্বে হয়ে থাকে (বর্তমানে জেনেরাল সেক্রেটারী হলেন – আন্দ্রেস ফগ রাসমুসেন. এই পরিষদের সিদ্ধান্ত সকলে মিলে নেওয়া হয়ে থাকে. ন্যাটো জোটের প্রধান দপ্তর ব্রাসেলস শহরে রয়েছে. সর্বোচ্চ রাজনৈতিক – সামরিক অঙ্গ – সামরিক পরিকল্পনা সংক্রান্ত পরিষদ, যেখানে ন্যাটো জোটের সদস্য দেশ গুলির প্রধান দপ্তর গুলির মুখ্য আধিকারিক অংশ নিয়ে থাকেন ও আইসল্যান্ড দেশের অসামরিক প্রতিনিধি থাকেন. সামরিক পরিষদের নিজেদের নিয়ন্ত্রণে দুটি এলাকা রয়েছে – ইউরোপ ও অতলান্তিকের এলাকা. ইউরোপের সর্বোচ্চ ও প্রধান নেতৃত্ব দিয়ে থাকেন আমেরিকার সর্ব্বোচ্চ প্রধান সামরিক নেতা. ন্যাটো জোটের সদস্য দেশ গুলি হল: বেলজিয়াম, গ্রেট ব্রিটেন, ডেনমার্ক, আইসল্যান্ড (এই দেশের নিজেদের কোন সামরিক শক্তি নেই), ইতালি, কানাডা, ল্যুক্সেমবার্গ, নেদারল্যান্ড, নরওয়ে, পর্তুগাল, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্স, গ্রীস, তুরস্ক, জার্মানী, স্পেন (সামরিক জোটে এই দেশ অংশ নেয় না), হাঙ্গেরী, পোল্যান্ড, চেখ, বুলগারিয়া, লিথুয়ানিয়া, লাতভিয়া, এস্তোনিয়া, রুমানিয়া, স্লোভাকিয়া, স্লোভেনিয়া, আলবানিয়া, ক্রোয়েশিয়া.