রাশিয়ার মুসলমানদের কেন্দ্রীয় সংগঠন মুফতি পরিষদের প্রধান ধর্মীয় নেতা শেখ রাভিল গাইনুদ্দীন ফোরামে মূল প্রতিবেদন তুলে ধরবেন। মধ্য এশিয়ার দেশ কাজাখস্তান, কিরগিজস্তান ও তাজিকিস্তান থেকে প্রধান অতিথিরা ফোরামে উপস্থিত থাকবেন।

এ বিষয়ে আরো জানিয়েছেন আয়োজন কমিটির সেক্রেটারী দামির হাজরত মুখেতদিনোভ। তিনি বলেন, আমরা অনেক আগে থেকেই বুখারাসহ মধ্য এশিয়ার মুসলমানদের প্রাণকেন্দ্রগুলোর সাথে যোগাযোগ রক্ষা করছি। বহুকাল আগে ওইঅঞ্চল থেকে ধর্মীয় নেতারা রাশিয়ায় এসে স্থায়ীভাবে বসবাস শুরু করেছিলেন। আমরা তাদের মাধ্যমেই আমরা জেনেছি যে এখানে মসজিদ, মাদ্রাসা ও ইমমরা ছিল

সম্প্রতি মুসলিম ধর্মীয় নেতাদের সাথে এক সাক্ষাতে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন বলেছেন যে, ১৯ ও ২০ শতকে মারজানি, মুরসি বিগিয়েভা ও ইইসুফ আকচুরির মত ধর্মীয় নেতারা রাশিয়ায় ধর্মভিত্তিক স্কুল প্রতিষ্ঠার ওপর গুরুত্ব দিয়েছিলেন। আসন্ন এ ফোরামে রাশিয়ার মুসলমানদের নতুন ধর্মীয় প্রার্থনার ওপর এক প্রতিবেদন তুলে ধরা হবে।

সামাজিক খাতে রাশিয়ার মুসলমানরা আরো সক্রিয় ভূমিকা পালন করছেন। এ বিষয়ে আরো জানিয়েছেন দামির হাজরত মুখেতদিনোভ। তিনি বলেন, অন্ধ প্রতিবন্ধীদের সহায়তায় ব্যাপক কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়েছে. তাদের জন্য নিরাময় কেন্দ্র গড়ে তোলা হয়েছে। অনেক মুসলমান কমিউনিটির পক্ষ থেকে শারীরিক প্রতিবন্ধী ও শিশুসদনের সাহায্য করছে প্রতিবছর মুফতি পরিষদ রমজানে সবার জন্য ইফতারি বিতরণের আয়োজন করে আমরা নিয়মিত স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচীর আয়োজন করি

আশাকরা হচ্ছে যে, ফোরামে, সৌদি আরব থেকে অতিথিরা উপস্থিত থাকবেন। এছাড়া মস্কোস্থ মুসলিমদেশগুলোর রাষ্ট্রদূতরা ফোরামে যোগ দিবেন।

রাশিয়ার মুসলমানরা সর্বদাই বিশ্ব মুসলিম উম্মার অবিচ্ছেদ্য অংশ হিসেবে নিজেদের দেখেছেন। তবে বর্তমানে পরিস্থিতি খুব একটা স্বাভাবিক নয়। দামির হাজরত মুখেতদিনোভ বলেন, তথাকথিত আরব বসন্ত পরিস্থিতিকে অস্থির করে তুলেছে। এখন পর্যন্ত কোন ঐক্যমত নেই যে এই দেশগুলো যেমন সিরিয়া, লিবিয়া ও ইরাকের ভবিষ্যত কি হবে এছাড়া মিশরে যেখানে আমাদের শিক্ষার্থীরা অধ্যয়নরত সেখানেও থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে যা আমাদের রীতিমত ভাবিয়ে তুলেছে রাশিয়া ঐতিহাসিকভাবে ইসলামিক বিশ্বের দেশগুলোর সাথে সম্পর্ক রয়েছে শুধুমাত্র রাশিয়ার মুসলমানরাই নয় বরং আমাদের দেশের সব নাগরিকরাই মধ্যপ্রাচ্যের সমসাময়িক পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বিগ্ন

ফোরামে গ্রন্থ প্রকাশ নিয়ে আলোচনা হবে বলে আশা করা হচ্ছে। রাশিয়ার মুসলিম সংগঠনগুলোর উদ্যোগে বর্তমানে তুর্কি প্রকাশকদের সাথে যৌথ সহযোগিতায় বড় ইসলামিক এনসাইক্লোপিডিয়া প্রকাশের কাজ চলছে।