এইমুহুর্তে ফিগার স্কেটিং, স্কি রেস ও বায়াথলন প্রতিযোগিতার অধিকাংশ টিকিটই বিক্রি হয়ে গেছে. তবে টিকিট বিক্রয়ের দিক থেকে পুরুষদের আইস হকির ধারেকাছে কোনো ইভেন্ট নেই. প্যারা অলিম্পিকের টিকিটও বিক্রি হচ্ছে পুরোদমে. মস্কোর মুখ্য টিকিট বিক্রয়কেন্দ্র থেকে অন্যতম প্রথম টিকিট কাটা, পেশায় এ্যাকাউন্টেন্ট নাতালিয়া ঝুরিনা এই প্রসঙ্গে বলছেন –

আমরা প্যারা অলিম্পিকের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের, বায়াথলনের ও আইস হকির টিকিট কেটেছি.

‘সোচি-২০১৪’ অলিম্পিকের অর্গানাইজিং কমিটি স্বকীয়ভাবে টিকিট ব্ল্যাকারদের সাথে যুঝছে. এই বিষয়ে বলছেন ‘এক্সপ্রেস গাজেতা’ সংবাদপত্রের ক্রীড়া বিভাগের মুখ্য-সম্পাদক সের্গেই দাদীগিন. –

অলিম্পিক গেমসে বরাবরই টিকিট ব্ল্যাকারদের দৌরাত্মি ছিল. আমি ইতিমধ্যেই দশ-দশটি অলিম্পিক গেমসে উপস্থিত থেকেছি, কিন্তু আমার এমন কোনো ঘটনা মনে পড়ে না, যখন কিছু সন্দেহজনক লোক প্রতিযোগিতা শুরু হওয়ার আগে টিকিট অফার করেনি. আমাদের অলিম্পিকের সংগঠকেরা নিজস্ব প্রতিষেধক খুঁজে বের করেছেন – প্রত্যেক টিকিটধানীর জন্য আলাদা পাসপোর্ট বানানো হবে. টিকিট কাটার পরই ক্রীড়াপ্রেমীর নামে একটা কার্ড বানানো হবে. ঐ কার্ড না থাকলে সোচিতে এসে টিকিট কাটার চেষ্টা হবে বৃথা.

তবে এটা হিমশৈলের চূড়াটুকু মাত্র. আসন্ন অলিম্পিকের অর্গানাইজিং কমিটির প্রতিনিধি ইগর স্তলিয়ারভ বলেছেন যে, টিকিট বিক্রির প্রক্রিয়ায় কয়েক পর্বের সুরক্ষা ব্যবস্থা থাকবে. উপরন্তু এই প্রক্রিয়া আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বিভাগগুলির কর্মপ্রক্রিয়ার সাথে ছন্দাবদ্ধ থাকবে, যারা অন্যদিকে বিদেশী সহকর্মীদের দ্বারা অর্জিত অভিজ্ঞতা কাজে লাগাবেন.