হোয়াইট হাউজ বলছে তা এক হাজার কোটি ডলারের মতো. স্টক এক্সচেঞ্জের খেলোয়াড়রা এবং পুঁজিপতিরা আরও বেশি সংখ্যার উল্লেখ করছে, এ কথা উল্লেখ করে যে, বিনিয়োগকারীরা এ সময়ে রাষ্ট্রীয় ঋণের উত্স থেকে সাময়িকভাবে বঞ্চিত ছিল.

   যাই হোক না কেন, এ বিষয় স্পষ্ট যে, মার্কিনী অর্থনীতির জন্য ক্ষতি – কম নয়. উপরন্তু আগে থেকেই তা স্পষ্ট হয়ে গিয়েছিল. তাহলে কি জন্য এর প্রয়োজন ছিল? রিপাব্লিকান পার্টি তাহলে এ মর্যাদাহানির দিকে গেল কেন? কারণ এ পার্টির রেটিং ১৯৯২ সাল থেকে এখন সবচেয়ে নিচু পর্যায়ে রয়েছে.

   মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে কেউ কেউ এখন আঙুল দেখাচ্ছে দুই সক্রিয় রিপাব্লিকানের দিকে – কোটি-পতি দুই ভাই চার্লস কোখ এবং ডেভিড কোখের দিকে. তারা রাষ্ট্রপতি ওবামার স্বাস্থ্যরক্ষা ব্যবস্থার সংস্কারের প্রস্তাবের বিরুদ্ধে আন্দোলনে লক্ষ লক্ষ ডলার ঢেলেছে. সংস্কারে অনুমিত যে, অপেক্ষাকৃত তরুণ ও সুস্থ মার্কিনী নাগরিকরা চিকিত্সা বীমা কেনার সময় খুবই কম সম্ভাবনা যে, তারা তা কখনও ব্যবহার করবে, এবং এভাবে গরিবদের, যাদের বীমা নেই, তাদের যত্ন নেওয়ার জন্য, সামান্য হলেও, অর্থ জোগাবে. রিপাব্লিকানরা, সেই সঙ্গে কোখ ভাইয়েরা, এ সংস্কারে সমাজতন্ত্রের দিকে বিপজ্জনক অগ্রগতি দেখছে.

   বিশ্বায়ন সংক্রান্ত গবেষণা কেন্দ্রের প্রধান, প্রফেসার মাইকেল চুদোভস্কি মনে করেন যে, সদ্য শেষ হওয়া বিরোধিতায় ব্যক্তিগত উপাদানের বিশেষ গুরুত্ব ছিল না. রিপাব্লিকানরা, মূলনীতিগতভাবে, সামাজিক প্রয়োজনে রাষ্ট্রীয় খরচ বৃদ্ধির বিরুদ্ধে, বিশেষ করে এখন –

   অবশ্য, এমন সব লোক আছে, যেমন কোখ ভাইয়েরা, যারা কংগ্রেসের কাজে হস্তক্ষেপ করতে পারে, কংগ্রেসের করিডরে কোনো যোগাযোগ থাকার জন্য. তবুও, যখন আমরা বর্তমানের বাজেট বিতর্কের কথা বলি, তখন আমাদের গঠন-বৈন্যাসিক কারণের কথা মনে রাখা দরকার. রাষ্ট্র দেউলিয়া হওয়ার সীমারেখায়. এখন মুখ্য স্থানে রয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ফেডারেল শাসনের ভবিষ্যত্. কর্তৃপক্ষ সম্মুখীন হয়েছে এমন পরিস্থিতির, যখন রাষ্ট্রীয় ঋণ বিগত ২০০৮ সালের সঙ্কটের সময়ের চেয়ে ৭০ শতাংশ বেড়েছে.

   চুদোভস্কি-র মতে, বর্তমানে আমেরিকা রাষ্ট্রীয় ও পৌর সম্পত্তির ব্যাপক পরিসরের ব্যক্তিগতকরণের সীমারেখায় এসে দাঁড়িয়েছে. মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ১০০টি শহর ইতিমধ্যে দেউলিয়া হয়ে গিয়েছে, সেই সঙ্গে বিখ্যাত ডেট্রয়েট শহরও. আর এখন মার্কিনী ধনী উপর-মহল এই তথাকথিত মুনাফা-হীন সম্পত্তির দিকে হাত বাড়াচ্ছে. প্রফেসার চুদোভস্কি উল্লেখ করেছেন যে, এ প্রশ্নে ডেমোক্রাট ও রিপাব্লিকানদের মাঝে বিতর্ক নেই, উভয় পার্টি নিয়ন্ত্রিত হচ্ছে সেই লবিইস্ট গ্রুপগুলির দ্বারা –

   যখন আমরা লবিইস্ট গ্রুপগুলির কথা বলি, তখন আমরা কোখ ভাইদের মতো এক অথবা দুই ধনী পরিবারের কথা বলছি না. আমরা বলছি গোটা ওয়াল স্ট্রীটের কথা, জে.পি. মর্গান চেজ ব্যাঙ্কের কথা, আমেরিকার কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্কের কথা, তাছাড়া ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাঙ্কের কথাও বলছি. শেষটি কথায় ফেডারেল, কিন্তু প্রকৃতপক্ষে এটি ব্যক্তিগত সংগঠন, যার হাতে রয়েছে রাষ্ট্রীয় ঋণের বন্ড দলিলগুলি.

   সামাজিক কর্মসূচির হ্রাস এবং গ্রীসের ধরণের কঠোর ব্যয়-সঙ্কোচের নীতি, চুদোভস্কি-র দৃষ্টিভঙ্গীতে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জন্য অবশ্যম্ভাবী. তবে প্রশ্ন থেকে যায়: কিভাবে তা করা যায়? তথাকথিত সুলভ স্বাস্থ্যরক্ষা সম্বন্ধে ওবামার কর্মসূচি – এ হল “লাইফ-বেল্ট”, যা হোয়াইট হাউজ সেই আমেরিকানদের জন্য প্রস্তাব করতে চায়, যারা কঠোর ব্যয় সঙ্কোচের কাঠামোতে অথৈ জলে পড়বে. আর রিপাব্লিকানরা এই “লাইফ-বেল্টের” জন্য খরচ করতে চায় না, তারা সঙ্গে সঙ্গেই রাষ্ট্রীয় সম্পত্তি “মোটা বেড়ালদের”, আমেরিকায় বড় কর্পোরেশন গুলিকে এই নাম দেওয়া হয়েছে, মাঝে ভাগ করার স্বপ্ন দেখছে. হোয়াইট হাউজ এবং কংগ্রেসের মাঝে বড় বিতর্কের এই হল অর্থ.