বারাক ওবামা ও ডেমোক্রাটরা বাজেট দ্বন্ধে জয়ী হওয়ার হারের দিক দিয়ে অনেকটাই কাছাকাছি অবস্থানে রয়েছে। বিশ্বস্থ সূত্র থেকে পাওয়া খবরে জানা যায়, কংগ্রেসম্যান ও রিপাবলিকানরা হোয়াইট হাউসের সাথে সমঝোতায় পৌছানোর ব্যাপারে তৈরী আছে। রিপাবলিকানদের প্রতিনিধি জন বেইনের অবশ্য একধাপ পিছনে যেতে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

তবে তথ্য যুদ্ধে ডেমোক্রেটিকরাই জয়ী হচ্ছে। আর রিপাবলিকানরা নিজেদের ভাবমূর্তি রক্ষা করার চেষ্টা করছে। গতকাল বৃহস্পতিবার দলের এক প্রতিনিধি কংগ্রেসম্যান এরিক কান্তোর বলেছেন, “সেনেটে রাষ্ট্রপতি ও ডেমোক্রেটিকদের রাজনৈতিক দ্বন্ধ থেকে সড়ে আসার সময় এসেছে। নিজেদের বিরোধপূর্ণ প্রশ্নের সমাধান করার জন্য আলোচনার টেবিলে বসতে হবে। কারণ আলোচনায় বসতে রাজী না হওয়ায় আমরা সংকটের মুখে পড়েছি।“

এদিকে সংবাদে জানা যায়, রিপাবলিকানরা শুক্রবারই বাজেট ও রাষ্ট্রীয় ঘাটতি সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে ভোটাভুটি করতে প্রস্তুত রয়েছে। আর ওবামার প্রেস সচিব জেই কার্নি ব্যাখ্যা করে বলেছেন, রাষ্ট্রপতিকে হুমকি দিয়ে কোন কিছু আদায় করা রিপাবলিকানদের দ্বারা সম্ভব না। জেই কার্নি বলেন, “আমরা এখনো সংশয় প্রকাশ করছি কারণ রিপাবলিকানরা রাষ্ট্রীয় ঘাটতির ইস্যু টেনে বর্তমান বাজেট পাশ করাকে থামিয়ে দিতে পারে। আর মার্কিন সরকারের এই “শাটডাউন” দেশকে ডিফল্ট-এর দিকে নিয়ে যেতে পারে। তবে তাদের বোঝা উচিত ডিফল্ট হলে তা পুরো দেশের জন্য ভয়াবহ পরিস্থিতি নিয়ে আসবে আর রিপাবলিকানরা তাই করার চেষ্টা করছে কিন্তু হোয়াইট হাউস যুক্তরাষ্ট্রের সুনাম ক্ষুন্ন হবে এমন কিছু করার সুযোগ তাদের দেবে না।“

তবে হোয়াইট হাউস কি করার সিদ্ধন্ত নিয়েছে সে বিষয়ে জেই কার্নি খোলামেলা করে কিছু বলেননি

এদিকে মার্কিন সরকারি সেবা খাতের কার্যক্রম বন্ধ (শাটডাউন)হয়ে যাওয়ায় বারাক ওবামা পূর্ব নির্ধারিত এশিয়া সফর বাতিল করেছেন। আগামী ৭-৮ অক্টোবর ইন্দোনেশিয়ার বালি দ্বীপে অনুষ্ঠ্রেয় এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অর্থনৈতিক সহযোগিতা (এ্যাপেক) সামিট এবং ব্রুনাইয়ে ৯-১০ অক্টোবর পূর্ব এশিয়া সম্মেলনে ওবামার যোগ দেওয়ার কথা ছিলো।