এটা একেবারে ঠিকই হয়ে আছে যে, সোচী শহর একটা সবচেয়ে দক্ষিণের শহর হিসাবে শীত অলিম্পিকের শহরের তালিকায় ঢুকবে. এর পরে বিষুবরেখার কাছে রয়েছে শুধু জাপানের নাগানো শহর, যেখানে ১৯৯৮ সালের শীত অলিম্পিক হয়েছিল. তা স্বত্ত্বেও, আয়োজকরা জোর দিয়ে বলেছেন: এখানে বরফ নিয়ে কোন সমস্যাই হবে না. তা সঞ্চয় করা শুরু হয়েছে সেই বসন্তের শুরু থেকেই. এখন এই রকমের বরফের ভাণ্ডারে রয়েছে প্রায় সাড়ে চার লক্ষ কিউবিক মিটারের বেশী বরফ. ২০১৪ সালে যেখানে কিছু প্রতিযোগিতা হওয়ার কথা সেখানের পাহাড়ী স্কেটিং করার কমপ্লেক্স যারা দেখাশোনা করেন, তাদের মতে, এত বেশী পরিমাণে আগে থেকে তৈরী রাখা বরফ এর আগে আর কোন দেশে করা হয় নি.

অলিম্পিকের সোচী শহরে বরফ সত্যই অনেক দরকার পড়বে. এই ক্রীড়া প্রতিযোগিতার সূচীতে আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটি প্রথমবার নতুন ছয় রকমের খেলা যোগ করেছেন: এটা মেয়েদের ট্রাম্পলিন জাম্প, ববস্লে রিলে রেস, ফিগার স্কেটিংয়ের গ্রুপ কম্পিটিশন, ফ্রি স্টাইল হাফ পাইপ (মেয়ে আর ছেলেদের আলাদা করে), আর তারই সঙ্গে বিয়াথলন প্রতিযোগিতায় মিক্সড রিলে রেস. তাছাড়া অলিম্পিকের তালিকায় তিনটে সম্পূর্ণ নতুন ধরনের প্রতিযোগিতা যোগ হয়েছে: স্নো বোর্ড ও ফ্রিস্টাইলে স্লোপ স্টাইল, আর তারই সঙ্গে দল হিসাবে সমান্তরাল ভাবে পাহাড় থেকে ঢাল বেয়ে নেমে আসা, তা যেমন স্কেট, তেমনই স্নো বোর্ড প্রতিযোগিতায়. সব মিলিয়ে এটা ১২ জোড়া বাড়তি পদক.

রাশিয়ার ফিগার স্কেটিং প্রতিযোগিতার বিখ্যাত ট্রেনার আলেক্সেই মিশিন, যিনি সেই রকমের বিশ্ব বিখ্যাত খেলোয়াড়দের তৈরী করেছেন যেমন ইভগেনি প্ল্যুশেঙ্কো এবং আলেক্সেই ইগুদিন, তিনি বলেছেন যে, রাশিয়ার দল এই ধরনের দলগত ফিগার স্কেটিংয়ের প্রতিযোগিতায় নিজেদের উপরে প্রভূত আশা রেখেছে, তাই বলেছেন:

“এটা নতুন ধরনের প্রতিযোগিতা, নতুন বাড়তি মেডেল. আমার মনে হয় যে, ফিগার স্কেটিং প্রতিযোগিতায় খুব কমই মেডেল দেওয়া হয়ে থাকে. এবারে হবে দলগত প্রতিযোগিতা, একক প্রতিযোগিতা, ডুয়েট ও ড্যান্সিং পেয়ার. দলের হয়ে প্রতিযোগিতা করতে গিয়ে আমাদের খুব ভাল রকমেরই সুযোগ রয়েছে মেডেল জয় করার”.

কিন্তু এই প্রতিযোগিতায় আসার জন্য স্রেফ টিকিট কেনাই যথেষ্ট হবে না. এখানে আবার ফ্যান পাসপোর্ট বানাতে হবে. এটা এক ধরনের নাম নথিভুক্ত করার মতো ব্যাপার. একটা ব্যাজ, যাতে বার কোডে সেই মানুষের সম্বন্ধে তার পাসপোর্টের তথ্য সহ সব প্রয়োজনীয় তথ্য দেওয়া থাকবে. এই ধরনের ব্যাজ পাওয়ার জন্য pass.sochi2014.com সাইটে একটা ফর্ম ভর্তি করতে হবে.

বোঝাই যাচ্ছে যে, এই খেলার প্রস্তুতি নিয়ে সমস্ত খুঁটিনাটি আয়োজকরা জানাতে চাইছেন না. কারণ অলিম্পিক শেষ অবধি স্রেফ আগে থেকে অনুমান করা ব্যাপার নাও হতে পারে.