জামিল নিজেও গণমৈত্রী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মাস্টার্স ডিগ্রী লাভ করেছেন। সম্প্রতি তিনি পাকিস্তানে ছবিটির শুটিংয়ের কাজ শেষে করে মস্কো ফিরেছেন।

রেডিও রাশিয়াকে দেওয়া সাক্ষাতকারে জামিল জানায়, “গনমৈত্রী বিশ্ববিদ্যালয় ইতিমধ্যে নিজের সূবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন করেছে। বাবার মতো নিজের প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের সাথে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক বজায় রেখে চলেছে। বাংলাদেশ, ভারতসহ বিভিন্ন দেশে বসবাসরত প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের বর্তমান জীবনধারা নিয়ে এরই মধ্যে নিয়মতি ডকুমেন্টারি ছবি নির্মাণ শুরু হয়েছে। আমি মনে করি, বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাংবাদিকতায় উচ্চতর ডিগ্রী লাভের শেষে এই ছবি নির্মাণ প্রকল্পের সাথে যুক্ত হতে পেরে নিজেকে সৌভাগ্যবান মনে করছি। “সোনালি অতীত” শিরোনামে এই প্রকল্পের দুই সদস্যের একটি দল নিয়ে আমরা সম্প্রতি পাকিস্তান সফর করি। পাকিস্তান যাওয়ার পূর্বে কয়েকমাস ধরে আমরা পূর্ব প্রস্তুতি নেই। পাকিস্তানের বিভিন্ন শহরে বসবাসরত গণমৈত্রী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের সাথে আমরা যোগাযোগ করি।“

 Photo: Jamil Khan

                                                                                                             © Photo: Jamil Khan

মস্কো থেকে পাকিস্তান যাওয়া এই দলটি ইসলামাবাদ, করাচি, লাহোর ও ফয়সালাবাদ ছাড়াও আরো অনেক এলাকা ভ্রমন করে।

জামিল জানায়, “সবচেয়ে অন্তরঙ্গ আর আবেগঘন সাক্ষাত ছিল করাচিতে অবস্থিত রুশ বিজ্ঞান ও সাস্কৃতিক কেন্দ্রে। বিভিন্ন শিক্ষাবর্ষে অধ্যায়ন করেছেন এমন ১০-১২ জনের মতো প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা সেখানে উপস্থিত ছিলেন। এদের মধ্যেই কেউ চিকিৎসক, প্রকৌশলী, অর্থনীতিবিদ, পরিবেশবিদ, শিক্ষক ও ব্যবসায়ী। তাদের সবাই রাশিয়ায় কাটানো শিক্ষা জীবনের নানা স্মরণীয় ঘটনা, রুশী শিক্ষক-শিক্ষিকা ও বন্ধুদের কথা বর্ননা করেন। উপস্থিতিদের মধ্যে একজন ছিলেন ইসলামাবাদের ড. শাহিদ হাসান। তিনি গণমৈত্রী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে উচ্চতর ডিগ্রী লাভ করেন। বর্তমানে হাবিব-রফিক নামে নামকরা একটি মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানীতে ইন্টারন্যাশনাল মার্কেটিং ডিরেক্টর পদে কাজ করছেন। কোম্পানীর কাজে তিনি নিয়মিত রাশিয়া আসেন। স্বমন্বয়কারী হিসেবে পাকিস্তান সফরের পুরোটাই আমাদের সাথে ছিলেন তিনি।

আনন্দের কথা হচ্ছে, তাঁর এই কোম্পানীর ম্যানেজিং ডিরেক্টর হাবিব রফিক হচ্ছেন লাহরে নিযুক্ত অনারারি কনসূলার লাহরের একটি মেশিন কারখানায় পরিচলকের পদে কাজ করছেন প্রকৌশলী জামাল আহমেদ এ শহরেই নিজের ক্লিনিকে চিকিৎসা সেবায় নিয়োজিত আছেন ডা. নাজাম এ শার চিকিৎসক হলেও সাহিত্যের প্রতি নাজামের ঝোক ছিল সবসময়ে। মিখাইল বুলগাকোভার রচিত জনপ্রিয় উপন্যাস মাস্টার ও মারগারিতা সম্প্রতি তিনি উর্দুতে অনুবাদ করেছেনআমরা যাদের সাথে সাক্ষাত করেছি তারা সাবাই নিজের অবস্থান নিয়ে সন্তুষ্ট প্রকাশ করেছেন সোভিয়েত ইউনিয়ন ও রাশিয়ায় ফেলে আসা ছাত্র জীবনের কথা স্মরণ করতে গিয়ে অনেকর চোখে পানি চলে আসতে দেখেছি লাহরের গভর্মেন্ট ইউনিভার্সিটি কলেজে আমরা দেখা করি অত্র শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের পদার্থ বিভাগের বিভাগীয় প্রধান হাসান শাহের সাথে।“

                                                                                                           © Photo: Jamil Khan

পাকিস্তানে ধারণকরা ভিডিও চিত্র থেকে ২০ মিনিটব্যাপী আলাদা আলাদা ২-৩টি ছবি তৈরী করা হবে বলে জামিল খান জানিয়েছেন।

“যারা রাশিয়ার শিক্ষা জীবন শেষ করে পাকিস্তান ফিরি গেছেন তাদের অধিকাংশই সাফল্যের সাথে নিজ নিজ পেশায় কর্মরত আছেন। দেশের বিভিন্ন প্রান্তে বসবাস করলেও তারা একে অপরের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রাখেন। রাশিয়ায় যে বন্ধুপ্রতিম সম্পর্ক তাদের সবাইকে একত্রিত করেছিল আজও সেই ঐতিহ্য ধরে রেখেছেন তারা। শুধু তাই নয়, পার্শ্ববর্তী ভারত, বাংলাদেশসহ অন্যান্য দেশের বন্ধুদের সাথেই যোগাযোগ রাখছেন।“

জামিল খান বলেন, চলতি বছরের শেষের দিকে ডকুমেন্টারি ছবির প্রথম খন্ড প্রকাশ পাবে। পাকিস্তান সফরের স্থির চিত্র ও ছবির ভিডিও ক্লিপ রেডিও রাশিয়ার ওয়েবসাইটে দেখতে পাওয়া যাবে।