জাপানের কিয়োডো সংস্থা জানিয়েছে যে, লাওসে পালিয়ে আসা উত্তর কোরিয়ার নাগরিকরা, যাদের চিনের মাধ্যমে দেশে ফেরত পাঠানো হয়েছে, তাদের মধ্যে ১৯৭৭ সালে জাপানের পশ্চিমে তোত্তোরি এলাকায় নিজের বাড়ী থেকে উত্তর কোরিয়ার গুপ্তচর বাহিনীর ধরে নিয়ে যাওয়া ২৯ বছরের মহিলা কিওকো মাতসুমোতোর ছেলে ছিল না ও সে নিজে পিয়ংইয়ং শহরে বাস করে, এই খবরেরও কোনও ভিত্তি নেই. দক্ষিণ কোরিয়ার সংবাদ সংস্থা মে মাসে এই খবর জানিয়েছিল যে, লাওসে পালিয়ে আসা লোকদের মধ্যে এই মহিলার ছেলে রয়েছে. জাপান সরকার মহিলার আত্মীয়দের জানিয়েছে যে, এই খবর সত্য নয়. পালিয়ে আসা লোকদের নিয়ে যেতে চেয়েছিল দক্ষিণ কোরিয়া লাওস থেকে সিওল, কিন্তু লাওস চিনের মাধ্যমে এদের নিজেদের দেশেই ফেরত পাঠিয়ে দেয়.