আসন্ন সময়ে রাশিয়াতে রাষ্ট্রীয় রাজনীতিতে সাইবার নিরাপত্তা রক্ষার জন্য একটি ভিত্তিমূলক দলিল গ্রহণ করা হতে চলেছে. তার লক্ষ্য – স্থির করা, কি করে মস্কো সাইবার আক্রমণ ও আন্তর্জাতিক সাইবার বিরোধে প্রতিক্রিয়া করতে ইচ্ছা প্রকাশ করবে. বিশেষজ্ঞদের মতে এই দলিল গ্রহণের প্রয়োজন বহুদিন আগেই তৈরী হয়েছে.

রাজনীতিবিদ ও স্বাধীন বিশেষজ্ঞরা প্রায়ই বলেন যে, এই ধরনের তথ্য সংক্রান্ত আক্রমণ সমস্ত জায়গাতেই করা হচ্ছে ও তার থেকে ক্ষয় ক্ষতি প্রায়ই সাধারণ অস্ত্র ব্যবহারের চেয়ে বেশী. আজ বাস্তবে অর্থনীতি ও সমাজ জীবনের সমস্ত ক্ষেত্রই কম্পিউটারের সঙ্গে যুক্ত. বৈদ্যুতিন নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে ব্যাঙ্ক গুলি একে অপরের সঙ্গে তথ্য বিনিময় করে, সরকারি সংস্থা গুলিও তাই করে. খুবই শক্তিশালী সার্ভার ও নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা সাইবার আক্রমণের জন্য সম্ভাব্য লক্ষ্য হতেই পারে, এই কথা উল্লেখ করে “ইনফোরুস” কনসোর্সিয়ামের সভাপতি আন্দ্রেই মাসালোভিচ বলেছেন:

“আজ সাইবার অস্ত্রের ক্ষমতা এতটাই যে, তা বিভিন্ন এলাকার শক্তি ব্যবস্থা বন্ধ করে দেওয়ার ক্ষমতা রাখে, সম্পূর্ণ আর্থ-বিনিয়োগ ব্যবস্থার অর্থ প্রবাহ বন্ধ করে দিতে পারে. রেলওয়ে ও বিমান পরিবহনের পরিকাঠামো স্তব্ধ করে দিতে পারে. এটা কোনও তাত্ত্বিক ব্যাপার নয়, এটা বাস্তব. দুঃখের বিষয় হল যে, এই সব অস্ত্র বহু লোকের হাতেই থাকতে পারে”.

বিশেষজ্ঞদের মতে, সবচেয়ে বেশী আক্রমণ সম্ভব ব্যাঙ্ক ক্ষেত্রের উপরে. প্রসঙ্গতঃ সাইবার সন্ত্রাসবাদীদের আক্রমণের লক্ষ্য বেশী করেই হচ্ছে ব্যক্তিগত বিনিয়োগ কাঠামো গুলি ও সরকারি গুলিও. এই বছরের বসন্তকালে বদমাশ লোকরা বেশ কয়েকটি দক্ষিণ কোরিয়ার ব্যাঙ্ক ও টেলিভিশন চ্যানেলের কম্পিউটার নেটওয়ার্ক খারাপ করে দিয়েছিল. বিভিন্ন সময়ে আক্রমণ করা হয়েছিল আমেরিকার ব্যাঙ্ক গুলির উপরে, আন্তর্জাতিক দাম দেওয়ার ব্যবস্থার উপরে, রাশিয়ার সবের ব্যাঙ্কের সাইটে ও আরও অনেক জায়গায়.

এর প্রত্যুত্তরে অগ্রণী রাষ্ট্র গুলি শুরু করেছিল আন্তর্জাতিক ভাবে গোষ্ঠী তৈরী করতে ও সাইবার সন্ত্রাস প্রতিরোধে পরিষদ তৈরী করতে.

বিশেষজ্ঞরা উল্লেখ করেছেন যে, সাইবার ক্ষেত্রে লড়াইয়ের মাঠ এখন শুধু তৈরী হচ্ছে, আপাততঃ, কোন একটি দলেরও স্পষ্ট কোন সুবিধা নেই. আর তার মানে হল যে, বিশ্বের যে কোনও এক বড় ক্রীড়নক এখন অস্ত্র তৈরী করার সামর্থ্য রাখে, যা প্রতিদ্বন্দ্বীদের চেয়ে বেশী ক্ষমতা সম্পন্ন, আর নতুন এক সম্ভাবনায় এলাকায় নেতৃত্ব দিতেই পারে. কিছু বিশ্লেষক এই বিষয়কে বলেছেন মহাকাশ বিজয়ের মতই এক মাথার উপরে লাফ দিয়ে ওঠার মতো ব্যাপার বলে.