বিশ্বে কোরান পাঠের এক সেরা হাফিজ শেখ আবু বকর আশ-শাত্রি চতুর্দশ আন্তর্জাতিক কোরান পাঠ প্রতিযোগিতার সম্মানীয় বিচারক মণ্ডলীর সভাপতি হতে চলেছেন. এই প্রতিযোগিতার আয়োজক কমিটির প্রধান ও রাশিয়ার মুফতি সভার উপসভাপতি রুশান-হজরত আব্বিয়াসভ রেডিও রাশিয়ার সাংবাদিক প্রতিনিধিকে এই প্রসঙ্গে বলেছেন:

“একেবারে কয়েকদিন আগেই আমাদের নিজের রাশিয়া আসা নিয়ে খবর দিয়েছেন বিশ্বের এক সেরা হাফিজ শেখ আশ-শাত্রি. তাঁকে সারা বিশ্বে সকলে চেনেন. তিনি মক্কার আল-হারাম মসজিদের ইমাম ছিলেন, আর এই সম্মানীয় শেখ এই প্রতিযোগিতার জ্যুরি বোর্ডের চেয়ারম্যান হবেন”.

কোরান পাঠ নিয়ে আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতা প্রতি বছরে রাশিয়ার মুফতি সভা করে থাকে. গত বছরে তাতে বিশ্বের ৩৪ টি দেশের প্রতিনিধিরা এসেছিল. প্রতিযোগিতার বিজয়ীদের মধ্যে ছিলেন আল-আক্সা মসজিদের ইমাম প্যালেস্টাইনের সৈদ ইব্রাহিম সৈদ দাউদ, টিউনিশিয়ার মারজুক হুস্সাম, ইরানের আমিন পুইয়া.

এই প্রতিযোগিতার আয়োজক কমিটির সভাপতির কথামতো, প্রায় আশি শতাংশ অংশগ্রহণকারী দেশের তালিকা বহু বছর হল অপরিবর্তিত রয়ে গিয়েছে, তিনি বলেছেন:

“আমাদের কাছে ঐতিহ্য মেনেই এই প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়ার বিষয়ে সমর্থন জানিয়ে থাকেন উত্তর আফ্রিকার দেশ গুলি – টিউনিশিয়া, আলজিরিয়া, মরোক্কো, মধ্য এশিয়ার দেশ গুলি আর তারই সঙ্গে তুরস্ক ও ইরান. আমরা ইউরোপ থেকেও অংশগ্রহণকারীদের আশা করি”.

প্রতিযোগিতা হবে দুটি বিভাগে. প্রথমে বাছাই পর্বে - প্রতিযোগিতায় ঠিক করা হবে সাতজন ফাইনালে যাওয়ার মতো প্রতিযোগীদের. তাদের প্রত্যেকেই জ্যুরি দের বাছাই অনুযায়ী নানা জ্যুজ থেকে তিনটি করে অংশ পড়ে শোনাবে.

জ্যুরিদের মধ্যে থাকছেন – পাঁচজন, তার মধ্যে রুশ নাগরিক – হাফিজ, শরিয়ত বিজ্ঞানে মাস্টার্স করা ইসলা-হজরত দাশকিন নামের মুফতি. আর রাশিয়ার হয়ে এই প্রতিযোগিতায় কে যাবে, তা আমরা খুব তাড়াতাড়িই জেনে যাবো, তাই আব্বিয়াসভ বলেছেন:

“মস্কো শহরে ৪ঠা আগষ্ট আমাদের দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে হাফিজরা আসবেন প্রতিযোগিতা করে কে রাশিয়ার হয়ে এবারে থাকবেন, তা ঠিক করার জন্য. এই বাছাই করার প্রতিযোগিতা হবে রমজানের শিবিরে ও তা এই পবিত্র মাসের শেষ দশ দিনের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের একটা সবচেয়ে সুন্দর অনুষ্ঠান হতে চলেছে”.

মস্কোর আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতাকে অনেকেই কোরান উত্সব বলে থাকেন. যাতে তা আরও জনপ্রিয় হয়, তাই এই বছরে ঠিক করা হয়েছে, তা নতুন এক মঞ্চে করার – রাশিয়া কনসার্ট হলে. তাই আব্বিয়াসভ বলেছেন:

“এটা সেই কারণেই করা যে, মস্কো শহরে কোরানের হাফিজদের শোনার জন্য আগ্রহী বহু লোক আছেন. কসমস কনসার্ট হল, যেখানে আমরা আগে এই প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছি, তাতে প্রায় এক হাজার লোক বসতে পারেন. আর রাশিয়া হলে আড়াই হাজার দর্শক থাকতে পারবেন”.

চতুর্দশ হাফিজ প্রতিযোগিতার ফাইনালের টিকিট এখনই কিনতে পারা যাচ্ছে. মস্কো কোরান উত্সবের অপেক্ষায় রয়েছে.