অবশেষে ব্রিটেনের বিবিসি সংবাদসংস্থা জানিয়েছে যে, জার্মানীর চ্যান্সেলর অ্যাঞ্জেলা মেরকেল এবারে ইউরোপীয় সঙ্ঘের দেশ গুলিকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও গ্রেটব্রিটেনের পক্ষ থেকে করা গুপ্তচর বৃত্তির বিষয়ে প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা নিতে বলেছেন.

মেরকেল বলেছেন, ইউরোপের দেশ গুলির উচিত্ হবে, প্রত্যেক দেশে তথ্য নিরাপত্তা সংক্রান্ত আলাদা আইন গ্রহণ না করে সম্মিলিত ভাবে ব্যবস্থা নেওয়ার যাতে এই ধরনের তথ্য চুরি বন্ধ করা সম্ভব হয়. তিনি আরও বলেছেন গুগল, ফেসবুক ইত্যাদির মতো সামাজিক কারণে ব্যবহার হওয়া ইন্টারনেট পোর্টাল গুলিকে বাধ্য করা দরকার তাদের তথ্য সংগ্রহের উপায় সম্বন্ধে প্রকাশ্যে বিবৃতি দেওয়ানোর ও প্রয়োজনে এদের জন্য শাস্তি মূলক ব্যবস্থা নেওয়া.

 প্রসঙ্গতঃ বর্তমানে মস্কো শহরের বিমানবন্দরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের শয়তানীর কথা ফাঁস করে দেওয়ার কারণে তিন সপ্তাহ ধরে কোথাও যেতে না পেরে আটকে রয়েছেন মার্কিন নাগরিক হয়েও পাসপোর্ট বিহীণ এডওয়ার্ড স্নোডেন, যিনি এই ধরনের মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধের কথা বিশ্বের সমস্ত মানুষের সামনে তুলে ধরেছেন ও তার সঙ্গে যোগাযোগ রাখা ব্রিটেনের গার্ডিয়ান কাগজের সাংবাদিকের মতে, তার কাছে থাকা তথ্য প্রকাশ্যে এলে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রকৃত পরিচয় সকলেই জানতে পারবে ও তারপরে সেই দেশের আর মানব সমাজে স্থান থাকবে না. বর্তমানে মার্কিন সরকার স্নোডেনকে নীরব করে দেওয়ার জন্য সমস্ত রকমের প্রচেষ্টা চালাচ্ছে. শুধু রাশিয়াতে থাকার কারণেই সে এখনও জীবিত রয়েছে.