আচমকা দেশের পূর্ব সামরিক এলাকার ও আংশিক ভাবে কেন্দ্রীয় এলাকার বাহিনীর সামরিক প্রস্তুতির পরীক্ষা করা শুরু হলেও কোন রকমের আন্তর্জাতিক দায়িত্ব লঙ্ঘণ করা হয় নি, বলে কেন্দ্রীয় দপ্তরের নিয়ন্ত্রণ বিভাগে বলেছেন উপ প্রতিরক্ষা মন্ত্রী আনাতোলি আন্তোনভ. তিনি বলেছেন যে, এই আচমকা মহড়া নির্দেশ পাওয়া মাত্র তা জানানো হয়েছে রাশিয়ার পররাষ্ট্র দপ্তরে. ১৯৯৮ সালের চুক্তি অনুযায়ী রাশিয়া, কিরগিজিয়া, তাজিকিস্তান ও চিন একে অপরকে মহড়ার সময়ে জানানি দিয়ে থাকে ও চিনের সীমান্তের এক-শো কিলোমিটারের মধ্যে কোন রকমের সামরিক কাজকর্ম করা হয় না.

চিনের বন্ধুদের আমরা এই চুক্তি অনুযায়ী আলাদা করে বাকী তথ্য দিয়ে জানিয়ে রেখেছি. – বলেছে উপ প্রতিরক্ষা মন্ত্রী.

আগে যেমন জানানো হয়েছিল যে, রাশিয়ার পূর্বে এই প্রশিক্ষণের কাঠামোর মধ্যে এক লক্ষ ষাট হাজার সেনাবাহিনীর কর্মী, প্রায় এক হাজার ট্যাঙ্ক ও অন্যান্য সাঁজোয়া গাড়ী ও সামরিক পরিবহনের মাধ্যম ব্যবহার করা হচ্ছে. পূর্ব ও কেন্দ্রীয় বাহিনীকে রাশিয়ার বৈকাল হ্রদের অপর পারে সাখালিন দ্বীপ এলাকায় সেনাবাহিনী যুদ্ধ প্রস্তুত অবস্থায় পাঠানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে.