বোলিভিয়ার রাষ্ট্রপতি এভো মোরালেস বলেছেন যে, তাঁ বিমান নিয়ে ঘটনা উপলক্ষে বোলিভিয়ায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস বন্ধ করে দিতে পারেন. এ সম্বন্ধে তিনি বলেছেন মস্কো সময় অনুযায়ী, গত রাতে. মোরালেস মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলেছেন যে, তার চাপে ইউরোপের একসারি রাষ্ট্র নিজেদের আকাশ-সীমা বন্ধ করে মস্কো থেকে দেশে ফেরা রাষ্ট্রপতির বিমানের যাত্রার জন্য, এ সন্দেহে যে, বিমানে রয়েছে সি.আই.এ-র প্রাক্তন কর্মী এডওয়ার্ড স্নোডেন. মস্কোয় মোরালেস বলেছিলেন যে, স্নোডেন-কে আশ্রয় দেওয়ার প্রশ্ন আমরা বিবেচনা করব, যদি তার কাছ থেকে যথাযথ অনুরোধ আসে. ল্যাটিন আমেরিকার কয়েকটি দেশের নেতা বোলিভিয়ায় মোরালেসের সমর্থনে সাক্ষাত্ করেছেন এবং এ ঘটনার চূড়ান্ত নিন্দা করেছেন. ভেনেজুয়েলার রাষ্ট্রপতি নিকোলাস মাদুরো সাংবাদিকদের জানিয়েছেন যে, সি.আই.এ-র দাবিতে বোলিভিয়ার রাষ্ট্রপতির বিমানের যাত্রার জন্য নিজেদের আকাশ-সীমা বন্ধ করেছিল ফ্রান্স, পোর্তুগাল, ইতালি এবং স্পেন. ফলে, রাষ্ট্রপতির বিমান অপরিকল্পিত ভাবে অস্ট্রিয়ায় নামতে বাধ্য হয়, আর সেখান থেকে লা-পাসে যাত্রা করে.