এখন রাশিয়ার প্রশাসনই ঠিক করবে সিআইএ সংস্থা প্রাক্তন কর্মী এডওয়ার্ড স্নোডেনকে নিয়ে কি করা হবে, ঘোষণা করেছেন ইকোয়েডরের রাষ্ট্রপতি রাফায়েল কোর্রেয়া.

রাষ্ট্রপতি যোগ করেছেন যে, রাজনৈতিক আশ্রয়ের জন্য আবেদন প্রক্রিয়াতে ইকোয়েডরের এলাকায় থাকার কথা রয়েছে. কোর্রেয়া উল্লেখ করেছেন যে, ইকোয়েডর “মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কথা শুনবে”, কিন্তু শেষ সিদ্ধান্ত নিজেরাই নেবে. কোর্রেয়া জানিয়েছেন যে, এর আগে তিনি মার্কিন উপরাষ্ট্রপতি জো বাইডেনের সঙ্গে আলোচনা করেছেন, যিনি অনুরোধ করেছেন, স্নোডেনকে রাজনৈতিক আশ্রয় না দেওয়ার জন্য.

এরই মধ্যে, ইকোয়েডর দেশের প্রশাসন সেই সুরক্ষা পত্র বাতিল করে দিয়েছে, যা স্নোডেনের নামে দেওয়া হয়েছিল. রাষ্ট্রপতি কোর্রেয়া ঘোষণা করেছেন যে, লন্ডনের ইকোয়েডর রাষ্ট্রের কনস্যুল ফীদেল নার্ভায়েস, যিনি এই দলিল দিয়েছেন, তিনি নিজের ক্ষমতার চেয়েও বেশী দায়িত্বের কাজ করেছেন ও তার জন্যে তাঁকে শাস্তি পেতে হবে. তিনি বিশেষ করে উল্লেখে করেছেন যে, নার্ভায়েস ইকোয়েডরের প্রশাসনের অজ্ঞাতসারে এই কাজ করেছেন. কোর্রেয়া একই সঙ্গে এবিসি নিউজ টেলিভিশন ও ইউনিভিশন কোম্পানীর সেই খবরকে “ভুয়া” বলে উল্লেখ করেছেন, যেখানে বলা হয়েছে যে, তিনি নাকি এই দলিলের কথা আগে থেকে জানতেন ও তাই তিনি এই কোম্পানী গুলিকে তথ্য প্রমাণ দিতে বলেছেন.

সিআইএ সংস্থা প্রাক্তন কর্মী আমেরিকার জাতীয় নিরাপত্তা সংস্থার ভাড়া করা কোম্পানীতে কাজ করেছে. স্নোডেন কিছুদিন আগে জনসমক্ষে নিয়ে এসেছে জাতীয় নিরাপত্তা সংস্থার দুটি গোপনীয় বৈদ্যুতিন গুপ্তচর বৃত্তির প্রকল্পের কথা, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে হংকংয়ে পালিয়েছে ও সেখান থেকে মস্কো উড়ে এসেছে. বিগত দিন গুলিতে মনে করা হয়েছে যে, মস্কোর শেরেমেতিয়েভো বিমান বন্দরের ট্রানজিট এলাকায় রয়েছে.