তৈপ এরদোগান ব্রিটেনের দ্য গার্ডিয়ান কাগজে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে বলেছেন যে, তাঁর দেশের ভেতরে বিরোধ ও প্রতিরোধের মূলে রয়েছে বিদেশী ষড়যন্ত্র ও বিদেশী শক্তি. দেশের কিছু সংবাদ মাধ্যম এই কাজে হাত লাগিয়েছে আর তাদের বাইরে থেকে উস্কানি দিচ্ছে বিদেশী সংবাদ মাধ্যম. অংশতঃ তিনি তুরস্কের বিবিসি সংবাদদাতার বিরুদ্ধেও কথা বলেছেন – তিনি বলেছেন এই ব্যক্তি নিজের দেশের বিরুদ্ধেই ষড়যন্ত্র করছে. যেমন এই রেডিও কোম্পানীর লোকরা বিশ্বের অন্যান্য দেশেও বিশৃঙ্খলা ও মাত্স্যন্যায় প্রসার করে. বাংলাদেশেও এই ঘটনা ঘটছে. ৩১শে মে থেকে তুরস্কে বিশৃঙ্খলা শুরু হয়েছে. নাগরিকদের প্রশাসনের নির্দেশের প্রতি অসন্তোষকে ব্যবহার করে দেশে চরমপন্থীরা নিজেদের কাজ হাসিল করছে, এদের ন্যায্য শাস্তি দেওয়া হবে. ইতিমধ্যেই আঙ্কারা শহরে পুলিশ কম করে হলেও ২০জনকে ধরেছে, তারাই ছিল প্রশাসন বিরোধ মিছিলে হিংসা প্রসারের মূল.