অর্থনৈতিক অপরাধ মাপ করে দেওয়া, বিশাল পরিবহন প্রকল্প, ভাড়া বৃদ্ধি রোধ করা – এই গুলিই সম্পূর্ণ তালিকা নয়, যা রাশিয়ার নেতৃত্ব করতে চলেছে দেশের অর্থনীতিকে চাঙ্গা করার জন্য. রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি দেশের বিকাশের জন্য নতুন দিক নির্দেশ করেছেন, সেন্ট পিটার্সবার্গের অর্থনৈতিক ফোরামে ভাষণ দিতে গিয়ে.

সর্বপ্রথম কাজ বলে, রাষ্ট্রপতি নাম করেছেন, দেশে স্থিতিশীল অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য পরিস্থিতি তৈরী করাকে. খনিজ তেলের দাম নিয়মিত ভাবে বাড়ার সময়ে, দেশের অর্থনীতি খুবই আরামদায়ক মনে করেছে. ভ্লাদিমির পুতিনের মতে আজ বিকাশের জন্য প্রয়োজন বিনিয়োগের, উদ্ভাবনের ও শ্রমের উত্পাদন ক্ষমতা বৃদ্ধির. তিনি এই প্রসঙ্গে বলেছেন:

“আমাদের দীর্ঘস্থায়ী বিনিয়োগের জন্য ভিত্তিমূলক পরিস্থিতি তৈরী করে দেওয়া দরকার, যা অর্থনীতির কাঠামো বদলের জন্যেই বেশী করে প্রয়োজন. আমি আগেও যেমন বলেছি, যে আপাততঃ মূল্যবৃদ্ধি উঁচুই রয়েছে ও আমাদের এটা পরবর্তী কালে নামিয়ে আনতে হবে. মূল্যবৃদ্ধির জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ কারণ হয়েছে প্রয়োজনীয় রসদের মূল্য ও ভাড়া বেড়ে যাওয়া... এই প্রসঙ্গে আমি আপনাদের, যে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে, তা জানাতে চাই. পরিকাঠামো সংক্রান্ত একচেটিয়া অধিকার গুলির, নিয়ন্ত্রণ যোগ্য ভাড়া বেঁধে দেওয়া হবে. আর তা গত বছরের বাস্তব মূল্যবৃদ্ধির চেয়ে বেশী হবে না. এই নিয়ম আগামী পাঁচ বছরের জন্য স্থির করা হবে, ২০১৪ সাল থেকে শুরু করে”.

এই ঘোষণা গুলি যেমন সম্ভাব্য বিনিয়োগকারীদের উদ্দেশ্য করে, তেমনই তাদের উদ্দেশ্য করেও বলা হয়েছে, যারা এখন রাশিয়ার অর্থনীতিতে অর্থ বিনিয়োগ করছেন. রাষ্ট্রপতি বিশ্বাস করেন যে, দেশের সমস্ত সরকারি কর্মচারীর জন্যই বিনিয়োগের পরিবেশ ভাল করার কাজ প্রাথমিক হওয়া প্রয়োজন, তাই তিনি বলেছেন:

“আমি, যারা এই দেশে শ্রম সংস্থান করে দেন, তাঁদের নিজেদের বা বিদেশের ব্যবসায়ী বলে ভাবি না. আমাদের জন্য যে কোনও ব্যক্তিই গুরুত্বপূর্ণ, যিনি কাজ করেন. আর আমরা সেই রকমের লোকদের জন্য শুধু ভালই নয়, বরং সবচেয়ে ভাল কাজের জায়গা তৈরী করার দিকে লক্ষ্য রেখেছি”.

সেন্ট পিটার্সবার্গের অর্থনৈতিক ফোরামে নতুন করে জ্বালানী শক্তি শিল্প ক্ষেত্রে নজর দেওয়া হয়েছে, অংশতঃ, তরল প্রাকৃতিক গ্যাসের দিকে. ভ্লাদিমির পুতিন প্রস্তাব করেছেন, ধীরেধীরে তরল প্রাকৃতিক গ্যাস রপ্তানীর উপরে বাধা কম করার. রাশিয়া মনে করে এটা সম্ভব, কারণ, পূর্বাভাস অনুযায়ী, খুবই আসন্ন সময়ে এশিয়া- প্রশান্ত মহাসাগরীয় এলাকার বাজারে জ্বালানী সরবরাহ দ্বিগুণ করতে হবে.

রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি তারই সঙ্গে ঘোষণা করেছেন নতুন পরিবহন সংক্রান্ত প্রকল্প গুলির কথা. ট্রান্স সাইবেরিয়া পথ প্রশস্ত করা হবে, যা ইউরোপ ও এশিয়া প্রশান্ত মহাসাগরীয় এলাকার মধ্যে সরাসরি রাস্তা. তারই সঙ্গে তৈরী করা হবে আমুর নদীর উপর দিয়ে রেল চলাচলের সেতু, যা রাশিয়াকে এশিয়া প্রশান্ত মহাসাগরীয় অর্থনীতির বাজারে বের হতে সাহায্য করবে.