সেন্ট পিটার্সবার্গে বৃহস্পতিবারে শুরু হয়েছে ১৭তম আন্তর্জাতিক অর্থনৈতিক ফোরাম. এই ফোরামে অংশ নিয়েছেন বিশ্বের ৬৬টি দেশের সরকারি প্রতিনিধি দল. অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে – ১৯০ জন বৃহত্তম বিদেশী কোম্পানীর প্রধান ও ৪২৮ জন রুশ কোম্পানীর প্রধানরা রয়েছেন.

রাশিয়ার অর্থনীতিতে বিনিয়োগের বিষয়ে এগিয়ে রয়েছে জ্বালানী শক্তি সংক্রান্ত শিল্প ক্ষেত্র. এই শিল্প সবচেয়ে বেশী মূলধন সংলগ্ন রুশ অর্থনীতির শিল্প ক্ষেত্র. বর্তমানের জ্বালানী শক্তি ক্ষেত্র নিয়ে ও তার বিকাশের রূপরেখা নিয়ে রেডিও রাশিয়াকে বলেছেন সেন্ট পিটার্সবার্গের অর্থনৈতিক ফোরামের একজন অংশগ্রহণকারী, রাশিয়ার ফোর্টুম নামের শক্তি কোম্পানীর উপ সভাপতি আলেকজান্ডার চুভায়েভ. তিনি বলেছেন:

“রাশিয়ার জ্বালানী শক্তি শিল্প ক্ষেত্রের পুনর্গঠনের জন্য বিনিয়োগ টেনে আনা হয়েছে এই শিল্প ক্ষেত্রে চার হাজার পাঁচশো কোটি ডলারের সমান অর্থ. এই শিল্প ক্ষেত্র এমন, যা পুনর্গঠনের আগের বিগত কুড়ি বছরে প্রায় কোন অর্থই আকর্ষণ করতে সক্ষম হয় নি ও আমরা শুধু সেই মূলধন ব্যবহার করেই কাটিয়েছি, যা সোভিয়েত দেশের উত্তরাধিকার হিসাবে আমরা পেয়েছিলাম. যে কোন ধরনের পুনর্গঠন, যদি আপনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, গ্রেট ব্রিটেন, ইউরোপে দেখেন, যা হয়েছে এই জ্বালানী শক্তি ক্ষেত্রে, তা অবশ্যই হয়েছে বিভিন্ন রকমের বাঁকা পথে – যা সাধারণতঃ হয়ে তাকে যে কোন নিয়ন্ত্রিত শিল্প ক্ষেত্রে বাজার অর্থনীতির প্রবেশের ফলে. কোন সন্দেহই নেই যে, প্রত্যেক ক্ষেত্রেই এই ধরনের জটিলতা দেখা যায় ও তা সর্বত্র রয়েছে. কিন্তু এখানে প্রধান হল যে, রাশিয়ার বিদ্যুত ও জ্বালানী শক্তি শিল্প ক্ষেত্রে এবারে বিনিয়োগ এসেছে, তা আধুনিক হয়ে উঠছে, বিকশিত হচ্ছে যেমন নিয়ন্ত্রণের দৃষ্টিকোণ থেকেও, তেমনই হচ্ছে বিনিয়োগ আকর্ষণ সম্বন্ধেও. এটা একটা বড় মাপের সাফল্য”.

এই বছরের ফোরামে রাশিয়ার উত্তরে রাজধানীতে প্রায় পাঁচ হাজার অংশগ্রহণকারী এসেছেন. এই ফোরামের কাজে অংশ নিচ্ছেন রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি ভ্লাদিমির পুতিন.