সারা বিশ্বে ক্রীড়া ক্ষেত্রে প্রভাব ফেলার দিক থেকে রাশিয়া বিশ্বে তৃতীয় স্থানে. সেন্ট-পিটার্সবার্গে চলতি স্পোর্টস এ্যাকর্ডের সম্মেলনে  নয়া রেটিং তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে.

    বিশ্বব্যাপী ক্রীড়াক্ষেত্রে প্রভাব প্রকল্পের অংশীভুত এই রেটিং তালিকা. রাশিয়া গতবারে দখল করা তৃতীয় স্থান এবারেও বজায় রেখেছে. চীন যথারীতি প্রথম স্থানে আছে. গ্রেট ব্রিটেনকে দ্বিতীয় স্থান থেকে সরিয়ে গতবারে পঞ্চম স্থানে থাকা ক্যানাডা সেই স্থান দখল করেছে. আইস হকির মাতৃভূমি এই মর্যাদা পেয়েছে, কারণ ২০১৫ সালে ক্যানাডায় প্যান অ্যামেরিকান গেমস ও মহিলাদের বিশ্বকাপ ফুটবল প্রতিযোগিতা আয়োজিত হবে.

    রেটিংয়ে মার্কস গোণার পদ্ধতি এরকমঃ যে দেশ আসন্ন বড় কোনো আন্তর্জাতিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার আয়োজন করার দায়িত্বপ্রাপ্ত, সেই দেশ সটান এক প্রস্থ মার্কস পায়. আর প্রতিযোগিতা সম্পন্ন হওয়ার পরে তার আয়োজনের গুণগত উত্কর্ষতা বিচার করে আরও এক দফায় মার্কস দেওয়া হয়. সুতরাং, eurosport.ru সাইটের মুখ্য সম্পাদক ইগর জেলেনেত্সীনের মতে রাশিয়া পরের বার প্রথম স্থানে উন্নীত হতেই পারে.-

    আমাদের দেশে আগানী পাঁচ বছরে বিশ্বকাপ ফুটবল, শীতকালীন অলিম্পিক গেমস, ফরম্যুলা-১ ও ইউনিভার্সিয়াড আয়োজিত হবে. অতএব রাশিয়া রেটিংয়ে আরও উপরে উঠবেই, বিশেষতঃ আমাদের প্রধান প্রতিদ্বন্দী চীন ও ক্যানাডার  অদূর ভবিষ্যতে এত বড় মাপের আন্তর্জাতিক  ক্রীড়া  প্রতিযোগিতা  আয়োজন করার দায়িত্বভার নেই.

    বাস্তবিকই চীন ইদানীং তাদের সক্রিয়তায় রাশ টেনেছে. আগে চীন যখন তখন যে কোনো আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতা আয়োজন করার জন্য তৈরি থাকতো. তবে সম্প্রতি দেশের শাসক কর্তৃপক্ষ "সবার জন্য স্পোর্টস" এই নীতি     অনুসরণ করার পথ বেছে নিয়েছেন.

    রাশিয়ার কথা বলতে গেলে বলতে হয়, যে রেটিংয়ে তৃতীয় স্থান বিশাল সাফল্য আর সর্বোচ্চ চূড়ায় ওঠার প্রয়াস ও আকূতি সর্বদাই থাকে.