ভিয়েনায় সোমবার শুরু হচ্ছে আন্তর্জাতিক পারমাণবিক শক্তি এজেন্সির পরিচালকমন্ডলী পরিষদের বৈঠক, যা চলবে শুক্রবার পর্যন্ত. এজেন্সির কূটনৈতিক মহলের এক উত্সকে উদ্ধৃত করে “ইতার-তাস” সংবাদ এজেন্সি জানিয়েছে যে, আলোচ্য সূচিতে আছে দুটি মুখ্য প্রশ্ন – আগামী বছরের জন্য আন্তর্জাতিক পারমাণবিক শক্তি এজেন্সির বাজেট অনুমোদন করা এবং ইরানের পারমাণবিক কর্মসূচি সম্পর্কে পরবর্তী ত্রৈমাসিক রিপোর্ট আলোচনা করা. পরিকল্পনা আছে যে, আন্তর্জাতিক পারমাণবিক শক্তি এজেন্সির প্রধান ইউকিয়া আমানো মুখ্য রিপোর্ট ছাড়া সেই সব সিদ্ধান্তও পেশ করবেন, এজেন্সির বিশেষজ্ঞরা যে সব সিদ্ধান্তে এসেছেন পারমাণবিক কর্মসূচি বাস্তবায়ন নিয়ে ইরানের ক্রিয়াকলাপ পরীক্ষা ও নিরীক্ষণের ফলে. আগে পর্যবেক্ষকরা জানিয়েছিলেন যে, ইরান নিজের বৈজ্ঞানিক-উত্পাদনী প্রকল্পগুলিতে প্রায় ৭০০ সেন্ট্রিফিউজ বসিয়েছে জ্বালানী বানানোর জন্য. সংবাদ এজেন্সির উত্স অনুমান করেন যে, রিপোর্ট পেশ করার পরে আন্তর্জাতিক মধ্যস্থ “ছয় দেশ” (রাশিয়া, চীন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্স, গ্রেট-বৃটেন, জার্মানি) প্রত্যুত্তরী বিবৃতি দেবেন এবং তাতে তেহেরানের ক্রিয়াকলাপের সংজ্ঞা নিরুপণ করবেন. তিনি বলেন, এখনও পর্যন্ত স্পষ্ট নয়, তা “ছয় দেশের” মিলিত প্রতিক্রিয়া হবে, অথবা প্রত্যেক দেশের নিজস্ব মতের প্রকাশ হবে. তিনি এ সম্ভাবনাও বাদ দেন নি যে, এ বিষয়ে “ছয় দেশের” মিলিত উত্তরও হতে পারে. তিনি আরও উল্লেখ করেন যে, ২০১৪ সালে এজেন্সির খরচ কিছুটা বাড়বে.