জর্ডনের রাজধানীতে বুধবার সন্ধ্যায় সিরিয়ার মিত্র দেশ গোষ্ঠীর ১১টি দেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রী পর্যায়ে বৈঠকের আগে দ্বিপাক্ষিক পরামর্শ চলছে. এই মিটিংয়ের আগে বক্তৃতা দিতে গিয়ে কাতার রাষ্ট্রের প্রধানমন্ত্রী ও একাধারে পররাষ্ট্র প্রধান শেখ হামাদ বেন জাসেম আল তানি ঘোষণা করেছেন যে, সিরিয়াতে রাজনৈতিক নিয়ন্ত্রণ হলে তা অবধারিত ভাবে দামাস্কাসের প্রশাসনের বদল ঘটানো উচিত্.

তাঁর কথামতো সিরিয়াতে সরকারি ফৌজের যুদ্ধের ফ্রন্টে সাফল্য হচ্ছে খুবই বিপজ্জনক বিরোধ বাড়ার কারণ, যা সমস্ত এলাকাতেই পরিস্থিতিকে অস্থিতিশীল করে দেবে. এই কারণে, যত দ্রুত সম্ভব সিরিয়াতে রক্তক্ষয় বন্ধ করতে হবে. কাতারের প্রধানমন্ত্রী একই সঙ্গে উল্লেখ করেছেন যে, রাষ্ট্রপতি বাশার আসাদের পদত্যাগ হবে সিরিয়ার জনগনের ইচ্ছার উপযুক্ত কাজ. একই রকম ধারণা নিয়ে কথা বলেছেন গ্রেট ব্রিটেনের পররাষ্ট্র মন্ত্রী উইলিয়াম হেগ, তিনি তাঁর সহকর্মী জর্ডনের পররাষ্ট্র মন্ত্রী নাসের জাউদের সঙ্গে কথা বলেছেন. তিনি বলেছেন যে, সিরিয়ার সঙ্কট থেকে বের হওয়ার অন্য কোনও পথ তিনি দেখতে পাচ্ছেন না. আম্মান শহরের বৈঠকে যোগ দিচ্ছেন জর্ডন, গ্রেট ব্রিটেন, জার্মানী, ইজিপ্ট, ইতালি, কাতার, সংযুক্ত আরব আমীরশাহী, সৌদী আরব, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, তুরস্ক ও ফ্রান্সের পররাষ্ট্র প্রধানরা. আম্মানে সিরিয়ার বিরোধী ও বিপ্লবী শক্তির জাতীয় জোটের প্রতিনিধিত্ব করবে জর্জ সাবরা – সিরিয়ার জাতীয় জোটের তুরস্ক দেশে গাঁটি গেড়ে বসা শিবিরের নেতা.