জাতিসংঘ সিরিয়া ও নিকট প্রাচ্যের অন্যান্য সংঘাতের সমাধানে রাশিয়ার কর্তৃপক্ষের অবদানের প্রত্যাশা করছে. ‘ইন্টারফ্যাক্স’কে দেওয়া ইন্টারভিউয়ে এই কথা বলেছেন সাধারণ সম্পাদক বান কি মুন. তিনি ১৬ই মে রাশিয়া সফরে আসছেন.

বান কি মুনের কথায়, তিনি রাশিয়ার কর্তৃপক্ষের সাথে সাক্ষাত্কারে সবাইকে উদ্বিগ্নকারী সিরিয়া সহ একগুচ্ছ সমস্যা নিয়ে আলোচনা করবেন. তিনি উল্লেখ করেছেন, যে মারনাত্মক সব সংঘাতের মীমাংসা, উত্তেজনা প্রশমন, সারা বিশ্ব জুড়ে ত্রাণ সাহায্য পৌঁছানোর কাজে জাতিসংঘ রাশিয়ার উপর নির্ভরশীল.

তিনি বিশেষ করে উল্লেখ করেছেন, যে জাতিসংঘ ও রাশিয়াকে একত্রে উন্নততর বিশ্ব গড়ে তুলতে হবে.

বান কি মুন বলেছেন, যে আন্তর্জাতিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে আইনের অগ্রাধিকার মান্য করা, বিশ্ব নিরাপত্তা মজবুত করা এবং আন্তর্জাতিক রাজনৈতিক

ও অর্থনৈতিক সহযোগিতাকে অগ্রগামী করার কাজে জাতিসংঘ ও রাশিয়ার শরিকানা অতীব
গুরুত্বপূর্ণ. জাতিসংঘের সাধারণ সম্পাদক রাশিয়ায় থাকবেন ১৯শে মে পর্যন্ত. ইতিপূর্বে শেষবার তিনি রাশিয়া সফর করেছিলেন ২০১১ সালের এপ্রিলে

রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রক থেকে জানানো হয়েছে, যে সফরের আওতায় বান কি মুন ১৭ই মে ভ্লাদিমির পুতিন এবং পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লাভরোভের সাথে সাক্ষাত্ করবেন. সেখানে নিকট প্রাচ্যের উত্তেজনাকর পরিস্থিতি, কোরিয় উপদ্বীপে অগ্নিগর্ভ অবস্থা, মালিতে সংঘর্ষ থামানোর কাজে জাতিসংঘকে সাহায্য করার বিষয় নিয়ে তাদের মধ্যে আলোচনা হবে.