বাংলাদেশের সৈন্যবাহিনী মঙ্গলবার নাগাদ ভবন ধ্বসে পড়ার জায়গায় অনুসন্ধান ও উদ্ধার কাজ শেষ করতে চায়. সোমবার জানিয়েছে সৈন্যবাহিনীর প্রতিনিধি ইব্রাহিম ইসলাম. তাঁর কথায়, ধ্বংস-স্তূপ পরিষ্কার করার কাজ হস্তান্তর করা হবে বেসামরিক সংস্থাগুলিকে. এ সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে এ উপলক্ষে যে, ভবন ধ্বসে পড়ার জায়গায় ক্রমেই কম সংখ্যক শবদেহ পাওয়া যাচ্ছে. শেষ প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশে বেআইনীভাবে নির্মিত এ ভবন ধ্বসে পড়ায় নিহত হয়েছে ১১২৭ জন. আগে ধ্বংস-স্তূপের তলা থেকে জীবন্ত অবস্থায় বার করা হয়েছে প্রায় আড়াই হাজার জনকে. রাজধানী ঢাকার উপকণ্ঠে বেআইনীভাবে নির্মিত এ ভবন ধ্বসে পড়েছিল ২৪শে এপ্রিল. এ ভবনে ছিল পোষাক সেলাই কারখানা এবং বাণিজ্য-কেন্দ্র. ভবনের মালিক মুহম্মদ সোহেল রানা-কে সন্দেহ করা হচ্ছে গাফিলতির, বেআইনী নির্মাণের, এবং শ্রমিকদের এ ভবন সমাহার নির্মাণে বাধ্য করার, যা মানুষের জীবনের জন্য বিপজ্জনক. এ সব অপরাধের জন্য সর্বাধিক শাস্তি হতে পারে সাত বছরের কারাদণ্ড. তাছাড়া, স্থানীয় তদন্তকারীরা রানার বিরুদ্ধে মানুষ হত্যার অভিযোগ পেশ করার বিষয় অধ্যয়ন করছে. এ অভিযোগের শাস্তি হতে পারে মৃত্যুদণ্ড.