গ্রেট-বৃটেনের প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন সোমবার তিন দিনের সফরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পৌঁছোবেন. সেখানে তিনি একসারি প্রশ্ন আলোচনা করবেন, সেই সঙ্গে বস্টনে সন্ত্রাস এবং সিরিয়ার পরিস্থিতি, জানানো হয়েছে বৃটিশ সরকারের প্রেস-সার্ভিসে. রাষ্ট্রপতির পদে দ্বিতীয় মেয়াদের জন্য বারাক ওবামার পুনর্নির্বাচনের পরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে নিজের প্রথম সফরের সময় ক্যামেরন ফেডারেল তদন্ত ব্যুরোর কর্মীদের সাথেও সাক্ষাত্ করবেন, যারা তাঁকে বস্টন সন্ত্রাসের পরে অভিযানের গতি সম্বন্ধে পূর্ণ রিপোর্ট দেবে. তাছাড়া, বৃটিশ প্রচার মাধ্যমের খবর অনুযায়ী, ক্যামেরন ওবামার সাথে সাক্ষাত্ করবেন, যাতে গত সপ্তাহে রাশিয়া ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মাঝে অর্জিত সমঝোতার কাঠামোতে সিরিয়া সঙ্ঘর্ষের সম্ভাব্য রাজনৈতিক মীমাংসার খুঁটিনাটি আলোচনা করবেন. একই সঙ্গে, সোচি-তে রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি ভ্লাদিমির পুতিন এবং বৃটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনের শুক্রবারের আলাপ-আলোচনায় অংশগ্রহণকারী এক উত্স জানিয়েছেন যে, সিরিয়ায় সঙ্ঘর্ষের পক্ষগুলির অংশগ্রহণে আন্তর্জাতিক সাক্ষাত্ মে মাস শেষ হওয়ার আগে আয়োজিত হবে বলে মনে হয় না, কারণ এ সাক্ষাতের বিন্যাসে অনেক বেশি মতভেদ রয়েছে. রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লাভরোভ ৭ই মে মার্কিন পররাষ্ট্র সচিব জন কেরি-র সাথে আলাপ-আলোচনার ফলাফলের ভিত্তিতে জানিয়েছেন যে, রাশিয়া ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সিরিয়ার সরকার ও বিরোধীপক্ষকে প্রেরণা দেব সংলাপের জন্য তাদের অভিপ্রায়ে এবং এ উদ্দেশ্যে মে মাসের শেষে আন্তর্জাতিক সম্মেলন আহ্বানের সিদ্ধান্ত নিয়েছে, যা ২০১২ সালের ৩০শে জুন অনুষ্ঠিত জেনেভা সাক্ষাতের ক্রমানুবর্তন হবে.