সহিংসতা আর বোমা হামলার মধ্য দিয়ে শনিবার শেষ হলো পাকিস্তানে সাধারণ নির্বাচনের ভোট গ্রহণ।

সকাল ৮টা থেকে ভোট গ্রহণ শুরু হয় এহং তা স্থনীয় সময়ে বিকেল ৫টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও সময় ১ ঘন্টা বাড়ানো হয়। পাকিস্তানের নির্বাচন কমিশন এক ঘণ্টা ভোট গ্রহণের সময় বাড়িয়েছে। দেশজুড়ে ৭০ লাখ ভোট গ্রহণ কেন্দ্রে এক যোগে ভোট গ্রহণ চলে। ভোটগ্রহণের প্রাথমিক ফলাফল রাত ১০টায় জানা যাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে এদিকে সাধারণ নির্বাচনে ভোটগ্রহণ চলাকালে বন্দরনগরী করাচিসহ বিভিন্ন স্থানে সহিংসতায় অন্তত ১৮ জন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে অর্ধ শতাধিক।

নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দিতা হচ্ছে মূলতঃ তিনটি পার্টির মধ্যে – পার্লামেন্ট ভেঙে দেওয়ার আগে পর্যন্ত সরকার চালানো পাকিস্তান পিপলস পার্টি, প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের নেতৃত্বাধীন পাকিস্তান মুসলিম লীগ ও ক্রিকেট বাদশা ইমরান খানের নেতৃত্বাধীন পাকিস্তান তেহরিক-এ-ইনসাফ। অধিকাংশ প্রাকনির্বাচনী সমীক্ষার ফলাফল অনুযায়ী নওয়াজ শরিফের নেতৃত্বাধীন পার্টি এগিয়ে আছে।