ফ্যাশানদার পোষাক বিক্রেতা পশ্চিমী কোম্পানিগুলি ঘোষণা করেছে যে, বাংলাদেশে ২৪শে এপ্রিল ভবন ধ্বসে পড়ায়, যেখানে পোষাক সেলাই কারখানা কাজ করছিল, নিহতদের আত্মীয়-স্বজনকে ক্ষতিপূরণ দেবে. এ প্রতিশ্রুতি দিয়েছে বৃটেনের “প্রিমার্ক” এবং কানাডার “লবলো” কোম্পানি. এ খবর পাওয়া গেছে ধ্বসে পড়া রানা প্লাজা কেন্দ্রের মালিককে গ্রেপ্তার করে আদালতে হাজির করার পরে, যেখানে উকিল এবং বিক্ষুব্ধ জনতা স্লোগান তোলে “ফাঁসি দাও”, মঙ্গলবার জানিয়েছে “রয়টার” সংবাদ এজেন্সি. এই রানা প্লাজা ধ্বসে পড়া বাংলাদেশে বিগত পাঁচ মাসে তৃতীয় কারখানার দুর্ঘটনা, যাতে বহু লোক হতাহত হয়েছে. সরকারী তথ্য অনুযায়ী, রানা প্লাজা-র ধ্বংস-স্তূপে নিহত হয়েছে ৩৮৫ জন, এবং কারখানার বহু কর্মী সম্বন্ধে এখনও পর্যন্ত কোনো খবর নেই. এই ভবন ধ্বসে পড়ার ঘটনা উপলক্ষে আট জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে – চার জন কারখানার মালিক, দুজন ইঞ্জিনিয়ার, এবং তাছাড়া ভবনের মালিক মুহম্মেদ সোহেল রানা এবং তাঁর পিতা আব্দুল খালেক-কে. পুলিশ অনুসন্ধান করছে পঞ্চম কারখানা-মালিককে – স্পেনের নাগরিক দভিদ মাইয়োর-কে. এখনও জানা নেই, ভবন ধ্বসে পড়ার দিন তিনি বাংলাদেশে ছিলেন কি না. এ বিপর্যয় জনগণের বিক্ষুব্ধ প্রতিবাদ জাগিয়েছে, তারা বিপর্যয়ে দোষীদের বিরুদ্ধে প্রতিশোধ নেওয়ার দাবি করছে. আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা বাংলাদেশে নিজের মিশন পাঠিয়েছে.