বোস্টন হামলার সন্দেহভাজন দুই ভাইয়ের মা জুবেইদাত সারনায়েভে কান্না চোখে তাঁর সন্তানদের সম্পূর্ণ নির্দোষ বলে দাবি করেছেনচেচনিয়ায় রাশিয়ার সন্ত্রাসবিরোধী অভিযানের সময়েও জুবেইদাত একই কথা বলেছিলেন তিনি জানান, তার স্বামী ও ছেলেরা কেউই দোষী নয় তবে মার্কিন সাংবাদিকরা এমন ভাব প্রকাশ করেছেন যেন তার কথা বিশ্বাসযোগ্য নয়

কিন্তু বোস্টনে সম্পূর্ণ ভিন্ন পরিবেশ বোমা হামলায় নিহত হয়েছে মার্কিন নাগরিকরা এখন থেকে যুক্তরাষ্ট্রে একটা কথা সবাই মনে রাখবে এবং তা হলো-সন্ত্রাসীদের মধ্যে ভাল-খারাপ নেইআর এ ধরণের কর্মকান্ডকে কোন ভাবেই মেনে নেওয়া যায় না তা এ চলতি সপ্তাহে বলেছেন রুশ রাষ্ট্রপতি ভ্লাদিমির পুতিন পুতিনের সাথে প্রশ্নত্তর অনুষ্ঠান “সরাসরি সংযোগে” তিনি বলেন, 'রাশিয়া নিজেই সন্ত্রাসী হামলার লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত হয়েছে আমি বারবার দুঃখ প্রকাশ করেছি আমাদের পশ্চিমা বিভিন্ন সহযোগি রাষ্ট্রের গণমাধ্যমের সংবাদে যেখানে আমাদের দেশে সন্ত্রাসি হামলাকারীদের বিদ্রোহী বলে অভিহিত করেছে সন্ত্রাসীদের অনেক সময়ে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে তথ্য, অর্থ ও রাজনৈতিকভাবে সাহায্য করেছেআর তাদের এ ধরণের সহযোগিতা রুশ ফেডারেশনে সন্ত্রাসীমূলক বিভিন্ন হামলার রসদ যুগিয়েছে।'

তামেরলান সারনায়েভ যে একজন ভয়ানক সন্ত্রাসী তা মার্কিন গোয়ন্দা কর্মকর্তাদের রাশিয়ার পক্ষ থেকে হুশিয়ারি সংকেত দেয়ার পরেও কেন যুক্তরাষ্ট্র গুরুত্ব দেয় নি সে বিষয়টি এখন তদন্ত করে দেখা হচ্ছে নিউইয়র্ক টাইমস পত্রিকা জানায়, রাশিয়া থেকে ২টি জরিপ পাঠানো হয় শুরুতে রাশিয়ার পক্ষ থেকে এফবিআই’র কাছে তথ্য পৌঁছে দেয়ার চেষ্টা করা হয় যখন এফবিআই তামেরলান সারনায়েভের কাছ থেকে সন্দেহজনক কোন তথ্য না পাওয়ার পরে সংতর্কবার্তা পাটানো হয়ে সিআই’র কাছে কিন্তু তাদের কাছেও এ সংবাদ তেমন গুরুত্ব পায় নি উত্তর ককেশাসের উগ্রবাদীদের মার্কিনীরা নিজেদের শত্রু বলে মনে করে নি, বরং বন্ধু হিসেবেই কাছে টেনে নিয়েছে

দীর্ঘ সময়ে ধরে উত্তর ককেশাসের উগ্রবাদীদের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের পথ খোলা ছিল এমনকি ২০০০ সালের শুরের দিকেই ওই সব উগ্রবাদীদের সম্পর্কে রাশিয়ার তদন্তের জন্য সহযোগিতা বন্ধ করে দেয়া হয় মার্কিন কোন তহবিল থেকে চেচনিয়ার সন্ত্রাসীদের সহযোগিতা করা হচ্ছে তা সবারই জানা রয়েছে আর কথায় কথায় ওয়াশিংটন সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে কথা বলেএ ধরণের দুটানা মনোভাব আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদ দমনে নেতিবাচক পরিবেশ তৈরি করে সরাসরি সংযোগ অনুষ্ঠানে পুতিন বলেন, 'আমরা সবসময়ে বলে আসছি, ঘোষণা দেয়ার জন্য সময়ে নেয়ার কি প্রয়োজন আছে? সন্ত্রাসবাদ আমাদের সবার জন্য হুমকি এ বিষয়ে একে অন্যকে সাহায্য করা উচিত।'

আর এই দুই সন্ত্রাসের মুখ উন্মোচন হওয়া যা আমাদের মতবাদের প্রমাণ দিয়েছেসন্ত্রাসবাদ নিয়ে অবশেষে কি কোন আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে ঐক্যমতে পৌঁছানো সম্ভব হয়েছে? তবে আপাতত পশ্চিমারা নিন্দা জানাচ্ছে তাদেরকে যারা সন্ত্রাসী কর্মকান্ড দ্বারা পশ্চিমাদের স্বার্থে আঘাত হানতে চায় যদি ওই সব স্বার্থের ওপর কোন বিপদ বয়ে না আনে তাহলে পশ্চিমা গণমাধ্যমের কাছে সন্ত্রাসীরা বলতে বিদ্রোহী কিংবা স্বাধীনতার জন্য সংগ্রামী গোষ্ঠী বলে মতবাদই রয়ে যাবে