বাংলাদেশের সাভারে বুধবার ধসে পড়া বহুতল ভবনটি থেকে এখন পর্যন্ত ৩৩৭ জনের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

সময় যত গড়াচ্ছে, সাভারে ভবনধসের ঘটনায় মৃতের সংখ্যা তত বাড়ছে। আজ শনিবার সকাল থেকে এ পর্যন্ত অন্তত ১৫ জনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে

ধসে পড়া ভবন রানা প্লাজা থেকে তিনদিন পরও ধ্বংসস্তুপ থেকে জীবিত অবস্থায় অনেককে উদ্ধার করা হচ্ছে। আর ভবনের বিভিন্ন ফ্লোরে আটকে পড়াদের উদ্ধারের প্রাণপণ চেষ্টা চলছে।

সাভার থানার উপপরিদর্শক (এসআই) ফিরোজ আলমের বরাত দিয়ে প্রথম আলোর অনলাইন সংষ্করন জানায়, এ পর্যন্ত ৩২০টি মরদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। হস্তান্তরের অপেক্ষায় আছে ১৭টি মরদেহ। ধ্বংসস্তুপের ভেতর থেকে উদ্ধার করা মরদেহগুলো সাভার অধরচন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। সেখানে থেকে সনাক্ত করে মৃতদেহ নিচ্ছেন স্বজনরা।

উদ্ধারের পর আহতদের সাভারের এনাম মেডিকেলসহ রাজধানীর বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। আর উদ্ধারকৃতদের তাৎক্ষণিক চিকিৎসা দিতে দুর্ঘটনাস্থলের পাশেই অস্থায়ী মেডিকেল ক্যাম্প বসানো হয়েছে।

এদিকে অনলাইন সংবাদপত্র বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম জানায়, ধসে পড়া ভবন রানা প্লাজার দুই গার্মেন্ট মালিককে শুক্রবার রাত ১২টায় গ্রেপ্তার করা হয়। ওই দুই জন হলেন, নিউ ওয়েভ বটমস ও নিউ ওয়েভ স্টাইলের মালিক মাহবুবুর রহমান তাপস ও বজলুস সামাদ আদনান। বাংলাদেশের তৈরি পোশাক প্রস্তুত ও রপ্তানিকারকদের সংগঠন বিজিএমইএ’র আহ্বানে সাড়া দিয়ে তারা আত্মসমর্পণ করেছেন।

উল্লেখ্য, বুধবার সকাল ৯টার দিকে সাভার বাসস্ট্যান্ডের পাশে রানা প্লাজা নামের ৯তলা ভবন ধসে পড়ে। এর একদিন আগেই ভবনটির পিলারে ফাটল ধরা পড়ে।

সূত্রঃ প্রথমআলো, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম