২৮ দিন সাগরে ভেসে থাকার পর পালতোলা জাহাজ সেদোভ এর নাবিকরা উপকূলে পৌঁছেছেন। ওই দিনই রাশিয়ার জাহাজে পরিদর্শন করেছেন মরিশাসের রাষ্ট্রপতি।

টানা কয়েকদিন ধরে বিরাজ করা ভয়াবহ বন্যার পর দ্বীপ রাষ্ট্রের রাজধানী পোর্ট লুইসে নোংঙ্গর করে সেদোভ। বছরের এ সময়ে ভারী বৃষ্টিপাত হওয়া এই দ্বীপের জন্য স্বাভাবিক ঘটনা। এই দুর্যোগে প্রাণহানির ঘটনাও ঘটেছে। এ পর্যন্ত ৯ জন বন্যার কারণে মারা গেছে। সেদোভের নাবিকরা দ্বীপবাসীদের সাহায্য করতে প্রস্তুত রয়েছে। বিশ্ব ভ্রমনে বের হওয়ায় সেদোভ জাহাজ গত ৫ এপ্রিল মরিশাসের বন্দরে পৌঁছায় এবং এরপরেই জাহাজের ক্যাপ্টেন নিকোলাই জারচেনকো রেডিও রাশিয়ার সাথে কথা বলেন। তিনি জানান, “সৃষ্টিকর্তাকে ধন্যবাদ, নাটকীয় ওই ঘটনার সমাপ্তি ঘটেছে। এখন পোর্ট লুইস পূর্বের চেহারায়ে ফিরে এসেছে। গত কয়েকদিনের বন্যা আর তীব্র ঝড়ো হাওয়ায় ব্যাপক ক্ষতি হয়েছিল শহরের। আমাদের সহযোগিতা করার সুযোগ রয়েছে। আমরা শহরের রাস্তাঘাটগুলো মেরামতের জন্য ৫০ জনের একটি দল পাঠাবো। আপাতত অন্য কোন সাহায্যের প্রয়োজন পড়ছে না। গত রোববার ও সোমবার এখানে যা ঘটেছে তা সত্যি ছিল আতঙ্কের। পুরো শহর পানির নীচে তলিয়ে যায়, গাড়ি রাস্তার উপরে ভাসতে থাকে ও পাহাড়ী ঢল শহরের অভিমুখে নেমে আসে।"

প্রথম দিনে জাহাজ ঘাঁটে উচ্চপর্যায়ের কর্মকর্তারা অপেক্ষা করেছিলেন। পালতোলা জাহাজ পরিদর্শন করেন মরিশাসের রাষ্ট্রপতি রাজকেশর পুরিআগ। তিনি সেখানে ৩০ মিনিট সময় অবস্থান করেন। বিস্তারিত জানাচ্ছেন মরিশাসে দায়িত্বরত রুশ ফেডারেশনের রাষ্ট্রদুত ভিয়াচেসলেভ নিকিফোরেভ। তিনি বলছেন, "রাশিয়া ও মরিশাসের মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্কের ৪৫ বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে জাহাজে আয়োজিত অনুষ্ঠানে মরিশাসের রাষ্ট্রপতি অংশগ্রহণ করেন। তাকে স্মারক উপহার দেওয়া হয়। আমার মতে, রাষ্ট্রপতি অত্যন্ত আনন্দের সাথে অনুষ্ঠানে সময় অতিবাহিত করেন. রাষ্ট্রপতিকে জাদুঘর দেখানো হয়। জাহাজে এ ধরণের সাক্ষাতে তিনি খুবই খুশি হয়েছেন।"

ভিয়াচেসলেভ নিকিফোরেভের ভাষায়, মরিশাসে বন্যায় নিঁখোজ মানুষদের খুঁজে বের করার কাজে অংশ নিতে তৈরীর থাকার প্রস্তাবে রুশী নাবিকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি। রাশিয়ার রাষ্ট্রদুত জানান, দ্বীপে রাশিয়ার পুরানো পালতোলা জাহাজ নিয়ে স্থানীয়দের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ দেখা যায়। আগামী ২ দিন যখন সাধারণ দর্শকদের জন্য জাহাজ পরিদর্শন উন্মক্ত থাকবে, আশাকরী হচ্ছে যে, এখনে বহু মানুষের সমাগম হবে।

মরিশাস দ্বীপে সেদোভ আগামী ৮ এপ্রিল পর্যন্ত থাকার কথা রয়েছে। এরপর পরবর্তি ১৫ দিন জাহাজ দক্ষিণ আফ্রিকার কেপটাউনে অবস্থান করবে।