কোরিয়া উপদ্বীপ এলাকায় খুবই উত্তেজনা পূর্ণ পরিস্থিতি তৈরী হয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ কোরিয়ার সম্মিলিত কাজে - এই বার্তা উত্তর কোরিয়ার পরররাষ্ট্র দপ্তর থেকে জানানো হয়েছে বুধবারে রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদকে. নিজেদের বার্তায় উত্তর কোরিয়া জানিয়েছে যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ কোরিয়া সম্মিলিত ভাবে যে সামরিক মহড়া করছে, তাতে আলাদা করে ভারী বোমারু বিমান বি- ৫২ আনা হয়েছে. উত্তর কোরিয়া আত্মরক্ষার প্রয়োজনে শেষ অবধি যেতে প্রস্তুত. পিয়ংইয়ং থেকে আরও বলা হয়েছে যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের স্ট্র্যাটেজিক পারমানবিক রকেটগুলি বর্তমানে উত্তর কোরিয়ার দিকে তাক করে রয়েছে ও পারমানবিক বোমা সমেত ডুবোজাহাজ রয়েছে দক্ষিণ কোরিয়ার উপকূলে. ফলে কোরিয়া উপদ্বীপ এলাকায় পারমানবিক যুদ্ধের সম্ভাবনা এখন সম্পূর্ণ ভাবেই তৈরী হয়েছে.

আজ সকালে দক্ষিণ কোরিয়া সিওল থেকে ১১৮ কিলোমিটার দূরে উত্তর পূর্বে সীমান্ত এলাকা খোয়াচহনে সামরিক বাহিনীর অতিরিক্ত যুদ্ধ প্রস্তুতি প্রত্যাহার করেছে. সীমান্ত এলাকায় যদিও প্রহরা অব্যাহত রয়েছে, মনে করা হয়েছে যে, উত্তর কোরিয়া দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে সীমান্ত এলাকায় নিজেদের সামরিক বাহিনীর শতকরা ৭০ ভাগ শক্তি জড়ো করেছে, যদিও সীমান্ত লঙ্ঘণের কোন ঘটনা এখনও ঘটে নি. আগে উত্তর কোরিয়ার তরফ থেকে বলা হয়েছিল যে, এবারে তারা আমেরিকার সামরিক শক্তির উপরে আঘাত হানার জন্য প্রস্তুত হচ্ছে.